১৬ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ২রা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

আলমডাঙ্গা পৌরসভা এলাকায় ভ্যান-রিকসা চালকদের কাছ থেকে টাকা আদায় আপাতত বন্ধ

প্রতিনিধি :
শরিফুল ইসলাম রোকন
আপডেট :
আগস্ট ১১, ২০২০
52
বার খবরটি পড়া হয়েছে
শেয়ার :
| ছবি : 


আলমডাঙ্গা পৌরসভা এলাকায় ভ্যান-রিকসা চালকদের কাছ থেকে টাকা আদায় আপাতত বন্ধ করে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিলেন থানা অফিসার ইনচার্জ। উপজেলার বিভিন্ন গ্রাম থেকে আলমডাঙ্গা শহরে আসা ভ্যান চালকদের নিকট থেকে অর্থ আদায়ের বিরুদ্ধে উপজেলা চেয়ারম্যান আইয়ুব হোসেনের অনড় অবস্থানের কারণে সাংঘর্ষিক পরিস্থিতির সৃষ্টি হতে পারে। এমন আশঙ্কায় আইনশৃঙ্খলয়া পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে গতকাল ১১ আগস্ট রাতে তিনি এ প্রতিশ্রুতি প্রদান করেন।


জানা যায়, আলমডাঙ্গা পৌরসভা এলাকায় ভ্যান,পাখিভ্যান রিকসা,নসিমন,করিমন চালকদের কাছ থেকে জোরপূর্বক টাকা আদায়ের বিরুদ্ধে শক্ত অবস্থান নিয়েছেন উপজেলা চেয়ারম্যান আইয়ুব হোসেন। এ ঘটনার প্রতিবাদ জানিয়ে গত ৯ আগস্ট তিনি সাংবাদ সম্মেলন করেছেন। জীবিকার সন্ধ্যানে আলমডাঙ্গার বিভিন্ন গ্রাম ও পার্শ্ববর্তি উপজেলা থেকে আলমডাঙ্গা শহরে ছুটে আসা দরিদ্র ভ্যানচালকরা উপজেলা চেয়ারম্যানের কাছে এ বিষয়ে প্রতিকার দাবি করেন। এরই প্রেক্ষিতে উপজেলা পরিষদের নিজ অফিসে তিনি এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করেন। সংবাদ সম্মেলনে অবিলম্বে টাকা আদায় বন্ধ করা না হলে সকল চালকদের নিয়ে আন্দোলনে নামার ঘোষণা দেন তিনি।


সংবাদ সম্মেলনে উপজেলা চেয়ারম্যান আইয়ুব হোসেন বলেন, আলমডাঙ্গা উপজেলায় ১৫টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভা রয়েছে। উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের অনেক দরিদ্র মানুষ ভ্যান, রিক্সা, নসিমন- করিমন চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করেন। তারা পৌরসভা এলাকায় প্রবেশ করলেই ২০ টাকা হারে আদায় করা হচ্ছে।সম্পূর্ণ অবৈধভাবে পৌরসভা এসব দরিদ্র মানুষের কাছ থেকে টাকা আদায় করছে। তিনি বলেন, এ বিষয়ে তিনি খোঁজ নিয়েছেন। এভাবে টাকা আদায়ের কোন আইন নেই। পৌরসভা কোন আইনে টাকা আদায় করছে তা তিনি জানতে চান। এ সময় তিনি প্রশ্ন উত্থাপন করেন যে, ১৫টি ইউনিয়নের মানুষ কি আলমডাঙ্গা উপজেলার বাইরের? যদি বাইরের না হয় তাহলে পৌরসভায় ঢুকতে কেনো ট্যাক্স দিতে হবে? তাহলে আলমডাঙ্গা পৌর এলাকা থেকে উপজেলার কোন গ্রামে যেতে হলেও কি সংশ্লিষ্ট সেই ইউনিয়ন পরিষদকে চাঁদা দিতে হবে? তিনি উপজেলার দরিদ্র এসব মানুষের অভিভাবক দাবি করে বলেন, অবিলম্বে এ টাকা আদায় বন্ধ না করলে তিনি উপজেলার সব দরিদ্র মানুষকে নিয়ে আন্দোলন করতে বাধ্য হবেন।


উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের এমন শক্ত ভূমিকা গ্রহণের পরও দরিদ্র ভ্যানচালকদের নিকট থেকে টাকা আদায় বন্ধ হয়নি। এ নিয়ে আলমডাঙ্গা ক্রমেই উত্তপ্ত হয়ে উঠছে। গতকাল রাতে আলমডাঙ্গা থানা অফিসার ইনচার্জ আলমগীর কবীরের সাথে দেখা করেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান। এ সময় উপজেলা চেয়ারম্যান ভ্যানচালকদের নিকট থেকে অর্থ আদায়ের বিরুদ্ধে তার অবস্থান পূর্ণব্যক্ত করেন। উপজেলা চেয়ারম্যানের বক্তব্য শুনে থানা অফিসার ইনচার্জ বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী অফিসার লিটন আলীর সাথে আলোচনা করেন। পরে আপাতত ভ্যান-অটোচালকদের নিকট থেকে অর্থ আদায় বন্ধ রাখার প্রতিশ্রুতি দেন।


আলমডাঙ্গা থানা অফিসার ইনচার্জ আলমগীর কবীর জানান, পৌর মেয়র বর্তমানে ঢাকায় অবস্থান করছেন। তিনি ফিরে এলে তিনিসহ উপজেলা নির্বাহী অফিসার বসে আলোচনা করে একটি সিদ্ধান্ত নেবেন। পৌর মেয়রের ফিরে আসা পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে। এদিকে, বিবাদমান বিষয়টি নিয়ে পৌর মেয়র ও উপজেলা চেয়ারম্যানের পরষ্পর বিরোধি অবস্থানের কারণে সাংঘর্ষিক পরিস্থিতির সৃষ্টি হতে পারে। এমন আশঙ্কা থেকে আপাতত ভ্যান-অটো- আলমসাধু চালকদের নিকট থেকে অর্থ আদায় বন্ধ করে দেওয়া হবে। তাছাড়া, পৌর এলাকায় বাইরের ভ্যান-অটো-আলমসাধুর চালকদের নিইকট থেকে অর্থ আদায়ের ঘটনা সচেতন মানুষ কেউ সাপোর্ট করছেন না।

সর্বশেষ খবর
menu-circlecross-circle linkedin facebook pinterest youtube rss twitter instagram facebook-blank rss-blank linkedin-blank pinterest youtube twitter instagram