সাম্প্রতিক

শুক্রবার মাঠে নামছে যে দলগুলো

শুক্রবার থেকে শুরু হচ্ছে বিশ্বকাপ ক্রিকেটের অনুশীলন ম্যাচ। ব্রিস্টলে বিকেল সাড়ে ৩টায় পাকিস্তানের মুখোমুখি হবে আফগানিস্তান। কার্ডিফে দক্ষিণ আফ্রিকার মোকাবেলা করবে শ্রীলংকা। দীর্ঘ প্রতীক্ষার পর অবশেষে বিশ্বকাপের আমেজ গড়াতে যাচ্ছে মাঠে-ময়দানে।

প্রস্তুতি ম্যাচে ভালো ফলাফল করে মূল আসরের জন্য আত্মবিশ্বাস খানিকটা বাড়িয়ে নিতে অনুশীলন ম্যাচের জুড়ি নেই। এবারের আসরে সবগুলো দলই অনেক শক্তিশালী। শুক্রবার থেকে দলগুলোর শক্তিমত্তারও বিচার করতে পারবে দর্শক।

বিশ্বকাপের অনুশীলন ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশও। ২৬ মে পাকিস্তান ও ২৮ মে ভারতের মোকাবেলা করবে টাইগাররা। দুটি ম্যাচই অনুষ্ঠিত হবে কার্ডিফে।

লিস্টারশায়ারে পাঁচ দিনের ক্যাম্প শেষ করে এরই মধ্যে কার্ডিফে পৌঁছেছে টাইগাররা। তাদের আনুষ্ঠানিক অনুশীলন ম্যাচ শেষ হবে ২৮ মে। এক দিনের বিরতির পর আগামী ৩০ মে কেনিংটনের ওভালে শুরু হবে ক্রিকেট যজ্ঞ। উদ্বোধনী ম্যাচে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবে দক্ষিন আফ্রিকা ও স্বাগতিক ইংল্যান্ড। কেনিংটনে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে ২জুন বিশ্বকাপ মিশন শুরু করবে বাংলাদেশ।

এবারের আসরে শিরোপা জয়ের ফেভারিট হিসেবে আলোচনার শীর্ষে রয়েছে স্বাগতিক ইংল্যান্ড ও উপমহাদেশের পরাশক্তি ভারত। পুনর্গঠিত অস্ট্রেলিয়াও হানা দিতে পারে এই দুই দলের শিরোপার লড়াইয়ে। তবে বাংলাদেশকেও জায়ান্ট কিলার হিসেবে আখ্যায়িত করেছে ক্রিকেট বিশেষজ্ঞরা। দলটিকে হাল্কাভাবে না নেয়ার জন্য সতর্কও করে দিয়েছেন তারা।

গত বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালিস্ট বাংলাদেশ আসন্ন আসরে অন্তত সেমি-ফাইনালে খেলার লক্ষ্য স্থির করেছে। সম্প্রতি আয়ারল্যান্ডে ত্রিদেশীয় সিরিজে অপরাজিত চ্যাম্পিয়ন হিসেবে ট্রফি অর্জনের মাধ্যমে দলটি তাদের আত্মবিশ্বাসকেও শানিত করেছে।

২০১৮ সালের জানুয়ারি থেকে এ পর্যন্ত ২৭টি ম্যাচে অংশ নিয়ে ১৭টিতেই জয়লাভ করেছে বাংলাদেশ। গত দেড় বছরের জয় পরাজয়ের পরিসংখ্যানে বাংলাদেশের অবস্থান তৃতীয়। ৩৫ ম্যাচের মধ্যে ২৪টিতে জয় নিয়ে এই তালিকার শীর্ষে রয়েছে স্বাগতিক ইংল্যান্ড। ৩৩ ম্যাচের ২২টিতে জয় নিয়ে দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে ভারত।

এর অর্থ দাঁড়াচ্ছে অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড, ওয়েস্ট ইন্ডিজ পাকিস্তান ও শ্রীলংকার তুলনায় এগিয়ে রয়েছে টাইগাররা। যা বিশ্বকাপে ঐতিহাসিক সফলতা পাবার জন্য বাংলাদেশ দলকে দারুনভাবে প্রত্যয়ী করে তুলেছে।