সাম্প্রতিক

সাতক্ষীরায় দৃষ্টি প্রতিবন্ধী সংস্থার সংবাদ সম্মেলন

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি : সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসকের রিপোর্ট অনুযায়ী দৃষ্টি প্রতিবন্ধী আবুল কালাম আজাদ একজন জালিয়াত এবং তিনি বিভিন্ন খাত থেকে অনেক টাকা আত্মসাত করে দন্ডনীয় অপরাধ করেছেন। আর সেই আবুল কালাম আজাদ এবার নিজেকে সাধারন সম্পাদক দাবি করে সম্প্রতি তথাকথিত সাধারণ সভা করেছেন। তিনি প্রতারণার আশ্রয় নিয়ে দৃষ্টি প্রতিবন্ধীদের নানাভাবে হেনস্থা করছেন। অথচ এখন আর অন্ধ সংস্থা বলে কোনো সংস্থা নেই। পরিবর্তিত ও অনুমোদিত সংস্থা হচ্ছে জাতীয় দৃষ্টি প্রতিবন্ধী সংস্থা।
মঙ্গলবার দুপুরে সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলন করে একথা বলেন জাতীয় দৃষ্টি প্রতিবন্ধী সংস্থার সাতক্ষীরা জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক মো. কবির হোসেন। এ সময় তার স্ত্রী হালিমা খাতুন তার সাথে ছিলেন।
সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন শেখ আবুল কালাম আজাদ প্রতিবন্ধীদের টাকা আত্মসাতকারী জালিয়াত। তিনি যখন জাতীয় অন্ধ সংস্থার সাধারন সম্পাদক ছিলেন তখন তার বিরুদ্ধে ৪ লাখ ৩৫ হাজার টাকা আত্মসাতের অভিযোগ ওঠে। শিল্পী আক্তার নামের একজনের পরিচয়পত্র জাল করেন তিনি। সংস্থার কোষাধ্যক্ষকে বাদ দিয়ে তিনি ব্যংাকের টাকা তুলে নয় ছয় করেন। এসব বিষয়ে তদন্ত রিপোর্ট রয়েছে। সেই আবুল কালাম আজাদ এবার কেন্দ্র অনুমোদিত জাতীয় দৃষ্টি প্রতিবন্ধী সংস্থার নয় সদস্যের কমিটি থেকে বাদ পড়েছেন। এতে তিনি ক্ষিপ্ত হয়ে উঠেছেন। তবু নিজের সাবেক পরিচয় ব্যবহার করে আবুল কালাম আজাদ এখনও প্রতারণা করছেন। তিনি সংস্থার সাধারণ সম্পাদক কবির হোসেনকে হত্যার হুমকি দিচ্ছেন। রাস্তাঘাটে যেখানে পাওয়া যাবে সেখানে তাকে পিটিয়ে হাড়গোড় ভেঙ্গে দেওয়ার হুমকিও দিচ্ছেন। এ বিষয়ে আবুল কালামের বিরুদ্ধে সাতক্ষীরা সদর থানায় দুটি জিডি করেছেন কবির হোসেন।
কবির হোসেন আরও বলেন কেন্দ্র আনোয়ারুল ইসলামকে সভাপতি ও আমাকে ১৩.০৯.২০১৮ তারিখে সাতক্ষীরা দৃষ্টি প্রতিবন্ধী সংস্থার নয় সদস্যের কমিটির অনুমোদন দেয়। কিন্তু চতুর আবুল কালাম আজাদ আবারও এই সংস্থার সাধারণ সম্পাদকের মিথ্যা পরিচয় দিয়ে অপপ্রচার চালিয়ে যাচ্ছে। তিনি আবুল কালাম আজাদের এই ঘৃণ্য অপপ্রচারের নিন্দা জানান এবং একবই সাথে তিনি তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারের সহযোগিতা কামনা করেন।