সাম্প্রতিক

রাজনীতিকে কলুষমুক্ত ও বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের দেশ গড়তে বৃদ্ধবয়সে ভোটারের দ্বারে আয়ুব হোসেন

জুলকার নাইন জাকারিয়া হায়দার শুভ্র, স্থানীয় প্রতিনিধিঃ রাজনীতিকে কলুষযুক্ত ও বঙ্গবন্ধুর সোনার দেশ গড়তে বৃদ্ধবয়সেও ভোটের মাঠে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নেমেছেন আইয়ুব হোসেন। তিনি চুয়াডাঙ্গা জেলার আলমডাঙ্গা উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আনারস প্রতিক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। আইয়ুব হোসেন উপজেলার জামজামি ইউপির ২ টার্ম চেয়ারম্যান ছিলেন। বর্তমানে তার ছেলে নজরুল ইসলাম পর পর ২ টার্ম চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। ১৯৬১ সালে আইয়ুব হোসেন ছাত্রলীগ যোগ দেন। তিনি এক যুগের অধিক সময় আলমডাঙ্গা উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও ১৩ বছর সহসভাপতি হিসেবে সাফল্যের সাথে দায়িত্ব পালন করেন। আলমডাঙ্গা উপজেলার আওয়ামিলীগের সংগঠন বলতে গেলে তার হাতেই তৈরি। কৃষকলীগের প্রতিষ্ঠাতা প্রয়াত ব্যারিস্টার বাদল রশিদ ও আইয়ুব হোসেন এই দুই গুরুশিষ্য উপজেলায় আওয়ামীলীগ প্রতিষ্ঠিত করেছেন। তিনি নিজ দল ও দলের বাইরেও প্রচন্ড জনপ্রিয় ব্যক্তিত্ব। উচিত কথা বলা সহজসরল ভাল মানুষ হিসেবে সর্বত্র পরিচিত। সবক্ষেত্রে সত্য কত বলতে ভয় ও দ্বিধা করেন না। ভাড়ামি দালালি একদম অপছন্দ তার। তার চরিত্রের এই সকল দিক সাধারণ মানুষকে প্রবলভাবে টানে। যথেষ্ঠ শক্ত-সামর্থ তেজী এই মানুষটার বয়স এখন প্রায় ৭৫/৭৬। তা সত্বেও তিনি কেন ভোটের মাঠে। এ সম্পর্কে তিনি বলেন, আলমডাঙ্গায় যোগ্য নেতৃত্বের অভাব। কলুষমুক্ত, ইতিবাচক ও যোগ্য নেতৃত্বের ধারা তৈরি করতে হবে। তাছাড়া বংগবন্ধু স্বপ্নের সোনার বাঙলা গড়ে তোলার যোগ্য নেতৃত্ব আলমডাঙ্গায় গড়ে উঠেনি। সেই অভাব পূরণের জন্য তিনি নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।