সাম্প্রতিক

ফাঁসাতে গিয়ে তিনজন অস্ত্র মামলায় সাজা প্রাপ্ত

 নিজ অস্ত্র রেখে ইউপি মেম্বারকে ফাসাতে গিয়ে ফেসেছে ৩ জন।পাইপগান রাখার অপরাধে ৩ জনের প্রত্যেককে ১০ বছর করে কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত।

৭ এপ্রিল রোববার যুগ্ম জেলা জজ মাসুম বিল্লাহ বিচারাধীন বরিশালের বিশেষ ট্রাইব্যুনাল (৬) সাজার এ রায় দেন।আদালত সূত্র জানায়, সাজাপ্রাপ্ত আসামীরা হচ্ছে বাকেরগঞ্জ উপজেলার উত্তর কাজলাকাঠি এলাকার সাত্তার আকনের ছেলে শহিদুল আকন, মৃত আজিম উদ্দিন কারিকরের ছেলে আব্দুর রাজ্জাক কারিকর ও আব্দুল মজিদ ওরফে মোজ্জা কারিকরের ছেলে লিটন ওরফে লিটু কারিকর।

২০১১ সালের ৮ মার্চ তাদের বিরুদ্ধে বাকেরগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করেন র‍্যাব ৮ এর ডিএডি লুতফর রহমান। অভিযোগে তিনি বলেন রাত ১ টায় আসামি রাজ্জাক তাকে মুঠোফোনে জানায় ইউপি মেম্বার শাহালম কারিকরের গোয়াল ঘরে অস্ত্র রয়েছে। ঘটনা স্থলে গিয়ে খবর দাতাদের সন্দেহ হলে তারা বুঝতে পেরে রাজ্জাক ও লিটন পালিয়ে যায়। শহিদুলকে আটক করলে সে অস্ত্র রাখার কথা স্বীকার করে।

তার দেখানো মতে শাহলমের গোয়াল ঘরের আড়ার উপর হতে দুইটি পাইপগান উদ্ধার করা হয়। এধরণের অভিযোগ দেয়া হলে এক মাস ২২ দিন তদন্ত করে সত্যতা পেয়ে থানার এসআই খলিলুর রহমান আসামীদের বিরুদ্ধে চার্জশীট জমা দেন। রাষ্ট্রপক্ষ ৮ জনের সাক্ষ্য প্রদানে সক্ষম হয়।

সাক্ষ্য প্রমাণে দোষী সাব্যস্ত হলে তাদের তিনজনকে ওই দন্ড দেয়া হয়।লিটন উপস্থিত থাকায় রায় শেষে তাকে সাজাভোগে বরিশাল কেন্দ্রীয় কারাগারে পাঠানো হয় এবং রাজ্জাক ও শহিদুল পলাতক থাকায় তাদের বিরুদ্ধে সাজা পরোয়ানা ও গ্রেপ্তারী পরোয়ানা জারি করা হয় বলে আদালত সূত্র জানায়।