সাম্প্রতিক

তৃতীয় ধাপে ভোট পড়েছে ৪১.৪১ শতাংশ

পঞ্চম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের তৃতীয় ধাপে ৪১ দশমিক ৪১ শতাংশ ভোট পড়েছে। মাঠপর্যায় থেকে পাঠানো তথ্য সমন্বয় করে আজ সোমবার এ তথ্য জানিয়েছে নির্বাচন কমিশনের (ইসি) নির্বাচন ব্যবস্থাপনা শাখা।

এর আগে প্রথম ধাপে ভোট পড়েছিল ৪৩ দশমিক ৩২ শতাংশ এবং দ্বিতীয় ধাপে ভোট পড়েছিল ৪১ দশমিক ২৫ শতাংশ।

তৃতীয় ধাপে মোট ভোটার ছিল এক কোটি ৮২ লাখ এক হাজার ৭৭০জন। ভোট দিয়েছেন ৭৫ লাখ ৩৬ হাজার ৯২৬ জন। এর মধ্যে অবৈধ ভোটের সংখ্যা ১ লাখ ৬৫ হাজার ৮৩৩টি।

গতকাল রোববার অনুষ্ঠিত এ ধাপের ভোটে সর্বনিম্ন ভোট পড়েছে লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলায় ১৯ দশমিক ২৬ শতাংশ। এ উপজেলায় মোট ভোটার ছিল ৫ লাখ দুই হাজার ৫৬টি। ভোট পড়েছে ৯৬ হাজার ৬৮৩টি।

অন্যদিকে সর্বোচ্চ ভোট পড়েছে গোপালগঞ্জের টুঙ্গীপাড়া উপজেলায় ৭২ দশমিক ৯১ শতাংশ। এ উপজেলায় মোট ভোটার ছিল ৭৫ হাজার ৪ জন। ভোট দিয়েছেন ৫৪ হাজার ৬৮৬ জন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্বাচনি এলাকায় আওয়ামী লীগ মনোনীত কোনও প্রার্থী ছিলেন না। এ উপজেলাসহ গোপালগঞ্জ জেলার সবগুলো উপজেলাই উন্মুক্ত রেখেছিল ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ।

ইসি সূত্র জানায়, তৃতীয় ধাপে মোট ১১৭ উপজেলার ভোট হওয়ার কথা থাকলেও অনিয়মের কারণে কিশোরগঞ্জের কটিয়াদী উপজেলার ভোট বন্ধ করে দেয় কমিশন। বাকি ১১৬ উপজেলার মধ্যে আওয়ামী লীগ মনোনীত ৮৩ জন (এর মধ্যে নির্বাচনের মাধ্যমে ৫২ জন বাকিরা বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায়), জাতীয় পার্টির একজন, স্বতন্ত্র ৩৮ জন নির্বাচিত হয়েছেন।

এবারের উপজেলা নির্বাচন পাঁচ ধাপে অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এরই মধ্যে তিন ধাপের ভোট সম্পন্ন হয়েছে। ৩১ মার্চ চতুর্থ ধাপ এবং ১৮ জুন পঞ্চম ধাপের ভোট হওয়ার তারিখ নির্ধারণ করা রয়েছে।