সাম্প্রতিক

চুয়াডাঙ্গা সরকারি আদর্শ মহিলা কলেজের আয়োজনে বার্ষিক ক্রীড়া অনুষ্ঠানে জেলা প্রশাসক সায়মা ইউনুস লেখাপড়ার পাশাপাশি শরীরচর্চা অব্যাহত রাখতে হবে

download (1)জামিরুল ইসলাম : চুয়াডাঙ্গা সরকারি আদর্শ মহিলা কলেজের আয়োজনে বার্ষিক ক্রীড়া ও সাহিত্য-সংষ্কৃতি প্রতিযোগীতা কলেজ চত্বরে আনন্দঘন পরিবেশে অনুষ্ঠিত হয়েছে। সকাল ১০ টায় জাতীয় সংগীতের তালে তালে জাতীয় পতাকা, কলেজ পতাকা, অলিম্পিক পতাকা উত্তোলন শেষে পায়রা ও বেলুন উড়িয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে শুভ উদ্বোধন করেন চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসক সায়মা ইউনুস। তিনি বলেন, লেখাপড়ার পাশাপাশি শরীরচর্চা অব্যাহত রাখতে হবে। খেলাধুলার মান উন্নোয়নের জন্য প্রশিক্ষনের কোন বিকল্প নেই। উদ্বোধন শেষে ক্রীড়াবিদ ও রোভার স্কাউটস্ সদস্যদের শপথ বাক্য পাঠ করানো হয়। শপথ গ্রহন পাঠ শেষে আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর নওরোজ মোহাম্মদ সাঈদ। প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসক সায়মা ইউনুস। বিশেষ অতিথি ছিলেন চুয়াডাঙ্গা পৌর মেয়র ওবাইদুর রহমান চৌধুরী জিপু, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) আব্দুর রাজ্জাক, এনডিসি তরিকুল ইসলাম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (চুয়াডাঙ্গা সদর সার্কেল) তরিকুল ইসলাম, চুয়াডাঙ্গা সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ কামরুজ্জামান, উপাধ্যক্ষ ড. মোঃ জাহাঙ্গীর আলম, জেলা পরিষদের ভারপ্রাপ্ত প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা লুৎফর রহমান, সাবেক অধ্যক্ষ এস,এম ইসরাফিল, রওশন আলী, শহিদুল ইসলাম, চুয়াডাঙ্গা প্রেসক্লাবের সভাপতি আজাদ মালিথা, সহ সভাপতি এনটিভি’র জেলা প্রতিনিধি এ্যাড. রফিকুল ইসলাম, নির্বাহী সদস্য দৈনিক প্রথম আলো’র জেলা প্রতিনিধি শাহ আলম সনি, আলমডাঙ্গা প্রেসক্লাবের সভাপতি খন্দকার শাহ আলম মন্টু। সহকারি অধ্যাপক মাসুদ পারভেজ ও প্রভাষক নাজনীন আরা পারভীনের সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন সহকারি অধ্যাপক ড. আব্দুর রশীদ, সহকারি অধ্যাপক মফিজুর রহমান, মামুন অর রশীদ। আলোচনা সভা শেষে বিজয়ী শিক্ষার্থীদের মাঝে পুরষ্কার বিতরণ করেন প্রধান অতিথি ও বিশেষ অতিথিবৃন্দ। উক্ত সভায় ৩ গুনি জনকে সম্মাননা প্রদান করা হয়। তারা হলেন শিক্ষাবিদ আব্দুল মোহিত, বাউল শিল্পি আব্দুল লতিফ শাহ এবং সাবেক অধিনায়ক, বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবলদল ও ক্রীড়া পরিদপ্তরের উপ-পরিচালক নাজমুল হাসান লোভন। অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় পর্বে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে স্বেচ্ছাসেবকের দায়িত্ব পালনকারী লোভারবৃন্দ আসমাউল হুসনা (মুক্তি), তামান্না, মনিকা, জনিতা, সোনিয়া, সানজিদা সুলতানা, ছবি, মিতা, ইতি, ময়না, রশ্মি, শাহানাজ পারভীন, শান্তনা খাতুন, জান্নাতুল ফেরদৌস। ক্রীড়া কমিটির সার্বিক দায়িত্বে ছিলেন মফিজুর রহমান, অভ্যার্থনা কমিটির সার্বিক দায়িত্বে ছিলেন উপাধ্যক্ষ ড. মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম, ক্রীড়া পরিচালনা কমিটির দায়িত্বে ছিলেন সহকারি অধ্যাপক মামুন অর রশীদ, ধারাভাষ্য বর্ণনায় ছিলেন নাজনীন আরা শারমীন ও মাসুদ পারভেজ, ফলাফল সংগ্রহে ছিলেন রফিকানুর, বিচার কমিটিতে ছিলেন মাসুদ পারভেজ, সাহিদা খাতুন, মারফুল ইসলাম।