সাম্প্রতিক

চুয়াডাঙ্গায় ধর্ষণ মামলায় একজনের যাবজ্জীবন কারাদন্ড

চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি: চুয়াডাঙ্গায় ধর্ষণ মামলায় একজনকে যাবজ্জীবন কারাদন্ড দিয়েছেন আদালত। রোববার দুপুরে চুয়াডাঙ্গা নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইবুনালের বিচারক জিয়া হায়দার আসামীর উপস্থিতিতে এ রায় ঘোষণা করেন।
রায় ঘোষণার পর আসামীকে পুলিশ প্রহরায় কোট হাজতে নেওয়া হয়েছে।

দন্ডিত হাসেম আলি দামুড়হুদা উপজেলারসুলতানপুর গ্রামের বকুল হোসেনের ছেলে।

মামলার বিবরণ সূত্রে জানা যায়, ২০১৩ সালের ২৬ ডিসেম্বর রাতে দামুড়হুদা উপজেলার সুলতানপুর গ্রামের বাগানপাড়ার এক যুবতীকে হত্যার ভয় দেখিয়ে জোর পূর্বক ধর্ষণ করে একই গ্রামের হাসেম আলি। এরপর ওই যুবতী গর্ভবতী হয়ে পড়ে। বিষয়টি স্থানীয় চেয়ারম্যানকে জানালে সে বিচারের মিথ্যা প্রতিশ্রুতি দিয়ে ঘুরাতে থাকে।
ওই যুবতী ২০১৪ সালের ২ সেপ্টেম্বর বাদী হয়ে চুয়াডাঙ্গা নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইবুনালে হাসেম আলিকে আসামী করে মামলা দায়ের করেন।

আদালত শিশু সন্তান ও হাসেম আলির ডিএনএ পরীক্ষার নির্দেশ দেন। ডিএনএ পরীক্ষার রিপোটে হাসেম আলির সাথে যুবতীর সন্তানের মিল পায়।

নারী ও শিশু নির্র্যাতন দমন ট্রাইবুনালের বিচারক জিয়া হায়দার ৪ জন সাক্ষীর সাক্ষ্য গ্রহণ শেষে রোববার দুপুরে আসামীর উপস্থিতিতে এ রায় ঘোষণা করেন। রায়ে আসামীকে যাবজ্জীবন কারাদন্ড প্রদান করেন। অনাদায়ে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করেন। নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন অনুসারে কন্যা সন্তানের বিবাহ না হওয়া পর্যন্ত রাষ্ট্র তার সমস্ত খরচ বহন করবে।

নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইবুনালের পাবলিক প্রসিকিউটর অ্যাডভোকেট আব্দুল মালেক জানান, রােেয় আসামীর বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ আমরা প্রমান করতে পরেছে সাক্ষীর মাধ্যমে। আসামীর যাবজ্জীবন সাজা হয়েছে।