সাম্প্রতিক

এবার শিক্ষার্থীদের কাছে সিগারেট বিক্রি করলেই আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে

ধুমপান, বিষপান; ধুমপানে মৃত্যু ঘটে; ধুমপানের কারণে স্ট্রোক হয়; ধুমপানে মুখে ও ফুসফুসে ক্যান্সার হয়; ধুমপানে গর্ভের শিশু মারা যায়।” এরকম অনেকে নীতিকথা সিগারেটের প্যাকেটের গায়ে লেখা থাকলেও অধিকাংশরাই মানেন না। পাবলিক প্লেস ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে আইন থাকলেও ধুমপায়ীরা সেটি তোয়াক্কা করেন না। আর এতে ধুমপানকারীদের সাথে অন্যরা অস্থিরতা ও অসুস্থতায় ভোগেন অন্যরা। এ দিকে ধুমপানের কুফল তুলে ধরে পাবলিক প্লেসে ধুমপান ও প্রকাশ্যে সিগারেট জাতীয় তামাকদ্রব্য বিক্রয় বন্ধে দেবহাটা উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ ইকবাল হোসেনের ব্যতিক্রমী উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন সর্বস্থরের জনসাধারণ।

আর এতে ধুমপানকারীদের সাথে অন্যরা অস্থিরতা ও অসুস্থতায় ভোগেন অন্যরা। এ দিকে ধুমপানের কুফল তুলে ধরে পাবলিক প্লেসে ধুমপান ও প্রকাশ্যে সিগারেট জাতীয় তামাকদ্রব্য বিক্রয় বন্ধে দেবহাটা উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ ইকবাল হোসেনের ব্যতিক্রমী উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন সর্বস্থরের জনসাধারণ।

এই উদ্দেশ্য সফল করতে রবিবার (৭ মার্চ) দুপুরে ঝটিকা অভিযানে নামেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ ইকবাল হোসেন। সরকারি দেবহাটা পাইলাট হাইস্কুল হতে দেবহাটা বাজার পর্যন্ত প্রতিটি দোকানে তামাক জাতীয় দ্রব্য বিক্রয় বন্ধের নির্দেশ প্রদানের পাশাপাশি জনসাধারণকে পাবলিক প্লেসে ধুমপান থেকে বিরত থাকার কথা বলেন।

এ সময় তিনি তামাক জাতীয় দ্রব্য বিক্রয়কারী প্রতিষ্ঠান থেকে সিগারেট জাতীয় দ্রব্য জব্দ করে ওইসকল দোকানের তালিকা করেন। যুবসমাজ ও তরুণ শিক্ষার্থীরা যাতে মাদক বা তামাক জাতীয় দ্রব্যের নেশায় আসাক্ত হয়ে ভুল পথে পা না বাড়ায় সেজন্য এমন ব্যতিক্রমী উদ্যোগ গ্রহণ করেছেন বলে জানা গেছে।

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ ইকবাল হোসেন জানান, শুধু দেবহাটা নয়। উপজেলার প্রতিটি স্কুল, কলেজ এলাকায় বিড়ি, সিগারেটের দোকানদাররা যাতে শিক্ষার্থীদের কাছে তামাক দ্রব্য বিক্রয় না করতে পারে সে জন্য নিজের উদ্যোগে নেমেছি। আমাদের তরুণদের ভুল পথে ঠেলে দিয়ে তাদের ভবিষৎ যাতে নষ্ট না হয় সে জন্য আমার অভিযান অব্যাহত থাকবে। সাথে সাথে যদি দেবহাটার কোথাও শিক্ষার্থীদের কাছে মাদক বা সিগারেট বিক্রয় করে তবে তার বিরুদ্ধে আইনগত যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলেও জানান তিনি।