সাম্প্রতিক

যশোরে কৃষককে পিটিয়ে হত্যা

যশোরের মনিরামপুর উপজেলায় সেচপাম্পের মালিকানা নিয়ে বিরোধের জের ধরে এক কৃষককে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে। তার নাম যাদব সেন, বাড়ি তাড়ুয়াপাড়া গ্রামে।

রবিবার সকালে উপজেলার প্রতাপকাঠি গ্রামের ডুমুর বিলে এ ঘটনা ঘটে।
খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য যশোর ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠিয়েছে।
এদিকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিহত যাদব সেনের ভগ্নিপতি গোপাল চন্দ্র দাসকে আটক করেছে পুলিশ।

ওই ঘটনায় আহত মাধব সেন বলেন, ‘তারা চার ভাই। পৈতৃক সূত্রে তারা একটি সেচপাম্প পেয়েছেন। বড় ভাই আনন্দ সেন ঢাকায় থাকেন। সেচপাম্পের মালিকানা নিয়ে সেজ ভাই মাধব সেন ও ছোট ভাই যাদব সেনের সঙ্গে মেজ ভাই মদন সেনের দীর্ঘদিন ধরে দ্বন্দ্ব চলে আসছে। সেচপাম্পের মালিকানা পেতে দুই বছর আগে তারা ঢাকুরিয়া ইউনিয়ন পরিষদে অভিযোগ করেন। পরিষদের পক্ষ থেকে তিন ভাইকে এক বছর করে বোরো মৌসুমে সেচপাম্প চালানোর সিদ্ধান্ত দেয়া হয়। একপর্যায়ে পাম্পটি তাদের মেজ ভাই মদন সেনের দখলে যায়। সময় পার হলেও মদন সেন সেচপাম্পের দখল ছাড়তে চাননি।

মাধব সেনের ভাষ্য, বোরো মৌসুম শেষ হওয়ায় আজ সকাল সাড়ে আটটার দিকে ছোট ভাই যাদব সেন এবং ভাগনে বিশ্বনাথ দাসকে সঙ্গে নিয়ে তিনি সেচপাম্পটি খুলে আনতে প্রতাপকাঠি গ্রামের ডুমুর বিলে যান। ভাগ্নে বিশ্বনাথ সেচপাম্পটি নিয়ে বাড়ি ফিরছিলেন। পেছনে দুই ভাই হেঁটে যাচ্ছিলেন। খবর পেয়ে মেজ ভাই মদন সেন, তিন ভাগ্নে সুবাস দাস, কানাই দাস ও উত্তম দাস এবং তাদের সহযোগী ইমান আলী পথেই লাঠিসোটা নিয়ে অতর্কিতে হামলা চালান। এতে ঘটনাস্থলে যাদব সেনের মৃত্যু হয়।

মনিরামপুর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) এস এম এনামুল হক বলেন, ‘যাদব সেনের কয়েক মাস আগে ওপেন হার্ট সার্জারি হয়েছে। মেজ ভাই, তিন ভাগ্নে এবং তাদের এক সহযোগী লাঠি দিয়ে পেটানোয় ঘটনাস্থলেই যাদব সেনের মৃত্যু হয়। তার শরীরের বিভিন্ন জায়গায় বেশ কয়েকটি আঘাতের চিহ্ন আছে। এ ব্যাপারে থানায় মামলার প্রক্রিয়া চলছে।

x

Check Also

ক্ষতিকর জেলি ভরা হচ্ছে বাগদা চিংড়ির মাথায়

রাজধানীর উত্তরায় বাগদা চিংড়ির ওজন বাড়ানো জন্য মাথায় ক্ষতিকর জেলি ভরে বিক্রি করা ২০ মণ ...