সাম্প্রতিক

আলমডাঙ্গায় বিধবাকে ধর্ষণের অপচেষ্টার অভিযোগে চাচাতো ভাই ও ভাতিজা বিরুদ্ধে মামলা

আলমডাঙ্গার বৈদ্যনাথপুর গ্রামের ২ সন্তানের মা এক বিধবাকে ধর্ষণের অপচেষ্টার অভিযোগ তুলে চাচাতো ভাই ও আরেক ভাতিজা বিরুদ্ধে থানায় লিখিত অভিযোগ করা হয়েছে। গুরুতর এ অভিযোগটি টাকায় মিমাংসা করার জোর তদ্বির চলছে।

          জানা গেছে, আলমডাঙ্গা উপজেলার বৈদ্যনাথপুরের বাদল মন্ডলের মেয়ে বিয়ে হয়েছিল দামুঢ়হুদ উপজেলার ইব্রাহীমপুর গ্রামের সাইফুলের সাথে। গত মাসাধিকাল পূর্বে ২ সন্তান রেখে সাইফুল মারা গেছেন। ২ সন্তান নিয়ে বিধবা মা উঠেছেন বৈদ্যনাথপুর বাপের বাড়িতে। নির্যাতনের শিকার বিধবা জানান, গত পরশু ২২ মার্চ বেলা ৩টার দিকে তিনি বাড়ির নিকটবর্তি মাঠের ধানি জমিতে সেচ দেওয়া হচ্ছে কিনা দেখতে যাচ্ছিলেন। সে সময় তার চাচাত ভাই বিবাহিত সোহরব ( বাপের নাম আব্দুল কাদের) ও আরেক চাচাতো ভাই শাহাবুদ্দীনের ছেলে শামীম (২০) পাশের ভূট্টাক্ষেতের পাতা কাটছিল। বিধবাকে একা পেয়ে কুলাঙ্গার সোহরব প্রথমে তাকে ধাক্কা দিয়ে ভূট্টাক্ষেতের ভেতর ফেলে দেয়। তার বুকের উপর বসে। ভাতিজা নামের আরেক কুলাঙ্গার শামীম মুখে গামছা গুঁজে দেওয়ার অপচেষ্টা করে। কিন্তু বিধবা কোনভাবে উঠে দোঁড়ে পালায়। বাড়িতে গিয়ে চরম অসুস্থ হয়ে পড়লে ওই দিনই নেওয়া হয় হারদী হাসপাতালে। কিছুটা সুস্থ্য হলে গভীর রাতে হাসপাতাল থেকে বাড়িতে ফেরেন। পরে গতকাল বিকেলে আলমডাঙ্গা থানায় উপস্থিত হয়ে নির্যাতিত বিধবা লিখিত অভিযোগ করেছেন।

এদিকে, এ ন্যাক্কারজনক ঘটনা সম্পর্কে অভিযুক্ত শামীমের মা লাইলী খাতুন বলেন, তার ছেলে যে কাজ করেছে তা মানুষকে বলা সম্ভব হচ্ছে না। লজ্জ্বা শরমের শেষ নেই।

অন্যদিকে, আরেক অভিযুক্ত সোহরবের বাপ আব্দুল কাদের অনুরোধ করেন এ সংবাদ পত্রিকায় না লিখতে। তিনি বলেন, নিজেদের আত্মীয়স্বজন। টাকা পয়সা দিয়ে মিটিয়ে ফেলতে চেষ্টা করছেন।