সাম্প্রতিক

কর্মসৃজন প্রকল্পের টাকা ভাগাভাগি নিয়ে মহিলা মেম্বরকে লাথি মেরে অজ্ঞান করল পুরুষ মেম্বর

কর্মসৃজন প্রকল্পের আত্মসাতকৃত অর্থ ভাগাভাগির সময় আলমডাঙ্গার বেলগাছি ইউনিয়নের মহিলা মেম্বর নাসিমা খাতুনের তলপেটে উপর্যূপরি লাথি ও ঘুষি মেরে অজ্ঞান করার অভিযোগ উঠেছে সংশ্লিষ্ট ইউনিয়নের বিপ্লব মেম্বরের বিরুদ্ধে। গত পরশু বৃহস্পতিবার বেলগাছি ইউপি চেয়ারম্যান আমিরুল ইসলাম মন্টুর উপস্থিতিতে এ অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় নির্যাতিত মহিলা মেম্বর বাদী হয়ে বিপ্লব মেম্বরের বিরুদ্ধে থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।
লিখিত অভিযোগসূত্রে জানা গেছে, আলমডাঙ্গা উপজেলার বেলগাছি ইউনিয়নের ৩ নং ফরিদপুর ইউনিয়নের মেম্বর বিপ্লব হোসেন কর্মসৃজন প্রকল্পের পি আইসির সভাপতি হিসেবে কাজ করাচ্ছেন। সংরক্ষিত ১,২ ও৩ ওয়ার্ডের মহিলা মেম্বর নাসিমা খাতুন অভিযোগ করেছেন যে, ওই কর্মসৃজন প্রকল্পে ২৬ জন করে কাজ করার কথা থাকলেও বাস্তবে মাত্র ৫ জন করে কাজ করছে। অথচ সংশ্লিষ্ট অফিসকে ম্যানেজ করে ভূয়া মাস্টাররোল তৈরি করে বিপ্লব মেম্বর ২৬ জনের টাকা ব্যাংক থেকে উত্তোলন করে আত্মসাত করে আসছে। সাধারণত ত্রাণ অফিসের দায়িত্বশীল কেউ সাইড পরিদর্শনে যাওয়ার আগে পি আইসির সভাপতি বিপ্লব মেম্বরকে রিং দিয়ে জানিয়ে যান। সে সময় বিপ্লব মেম্বর গ্রামের কিছু লোকজনকে প্রকল্পের রাস্তায় দাঁড় করিয়ে রাখেন। এছাড়াও ঈদের আগে একটানা ৬ দিন কর্মসৃজন প্রকল্পে বিপ্লব মেম্বর কোন কাজ না করিয়ে সমুদয় অর্থ প্রতারণা করে ব্যাংক থেকে উত্তোলন করে নিয়েছে। নির্যাতিতা মহিলা মেম্বর আরও দাবি করেন- অবৈধভাবে উত্তোলিত অর্থ থেকে মহিলা মেম্বর হিসেবে তাকে প্রতি সপ্তায় ১ হাজার করে টাকা দেওয়ার কথা ছিল। কিন্তু নানা ছলনায় বিপ্লব মেম্বর তা থেকে মহিলা মেম্বরকে বঞ্চিত করে আসছিল।
গত বৃহস্পতিবার বিপ্লব মেম্বর ব্যাংক থেকে টাকা উত্তোলন করেছেন জানতে পেরে নাসিমা খাতুন বিপ্লব মেম্বরের কাছে ছুটে যান নিজের ভাগের টাকা নিতে। সে সময় বিপ্লব মেম্বর ইউপি চেয়ারম্যান আমিরুল ইসলাম মন্টুর আলমডাঙ্গা শহরের অফিসে ছিলেন। টাকা দিতে অস্বীকৃতি জানালে চেয়ারম্যানের সামনেই মহিলা মেম্বর নাসিমা খাতুনের সাথে বপ্লব মেম্বরের তর্কাতর্কি হয়। এক পর্যায়ে নাসিমা খাতুনকে বিপ্লব মেম্বর উপর্যুপরি তলপেটে লাথি ও ঘুষি মারতে থাকে। এতে নাসিমা খাতুন অজ্ঞান হয়ে পড়েন। সে সময় চেয়ারম্যান ও জাহাঙ্গীর মেম্বর অজ্ঞান অবস্থায় নাসিমা খাতুনকে উদ্ধার করে আলমডাঙ্গার প্রবীণ ডাক্তার মোস্তফার ক্লিনিকে নিয়ে যান। চিকিৎসা শেষে পুনরায় চেয়ারম্যানের বাড়িতে নিয়ে যাওয়া হয় অসুস্থ্য মহিলা মেম্বরকে।
একই ইউনিয়নের ২ নং ওয়ার্ড মেম্বর ঠান্ডু আলী ঘটনা সত্য উল্লেখ করে জানান, বিপ্লব মেম্বর তো ২৬ জনের বিপরীতে মাত্র ৫/৭ জন শ্রমিক নিয়ে কাজ করে। অফিস ম্যানেজ করেই ৫/৭ জন দিয়ে কাজ করে ২৬ জনের টাকা তুলে নেয়। তার মাথার উপর প্রভাবশালীদের আশির্বাদ আছে। গত বৃহস্পতিবার মহিলা মেম্বর নাসিমা খাতুন তার ভাগের টাকা চাইতে গেলে তাকে মারধর করেছে।
গতকাল নির্যাতিতা নাসিমা খাতুন বাদী হয়ে এ ঘটনায় আলমডাঙ্গা থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।

x

Check Also

গাংনীতে জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ-’১৯ অনুষ্ঠিত

গাংনী প্রতিনিধিঃ ‘মাছ চাষে গড়বো দেশ,বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশ’এই প্রতিপাদ্য বিষয় নিয়ে,বর্ণাঢ্য সড়ক র‌্যালী, উদ্বোধনী অনুষ্ঠান,আলোচনা সভা ...