সাম্প্রতিক

ইফতারে ঠাণ্ডা পানি খাওয়া, হতে পারে মারাত্মক বিপদ

তাপমাত্রা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে তার উপর রোজা রাখা। গরম আর সারা দিন পানি না খাওয়ায় শরীরের পানির চাহিদা বেড়ে যায়। তাই ইফতারে প্রথমেই প্রয়োজন হিম শীতল ঠাণ্ডা পানি। কিন্তু জানেন কি এই ভাবে ঠাণ্ডা পানি খাওয়ার অভ্যাস মারাত্মক বিপদ ডেকে আনতে পারে?

বিশেষজ্ঞদের মতে, খাওয়ার পরে ঠাণ্ডা পানি খাওয়ার অভ্যাস অত্যন্ত অস্বাস্থ্যকর। কারণ, এর ফলে শ্বাসনালীতে অতিরিক্ত পরিমানে কফের আস্তরণ তৈরি হয়, যা থেকে সংক্রমণের ঝুঁকি অনেকটাই বেড়ে যায়।

মাত্রাতিরিক্ত ঠাণ্ডা পানি খাওয়ার ফলে রক্তনালী সংকুচিত হয়ে পড়ে। শুধু তাই নয়, অতিরিক্ত ঠাণ্ডা পানি খাওয়ার ফলে আমাদের স্বাভাবিক পরিপাক ক্রিয়া বাধাপ্রাপ্ত হয়। ফলে হজমের মারাত্মক সমস্যা হতে পারে।শরীরচর্চা বা ওয়ার্কআউটের পর ঠাণ্ডা পানি একেবারেই খাবেন না।

কারণ, ঘণ্টা খানেক ওয়ার্কআউটের পর শরীরের তাপমাত্রা স্বাভাবিকের চেয়ে অনেকটাই বেড়ে যায়। এই সময় ঠাণ্ডা পানি খেলে শরীরের তাপমাত্রার সঙ্গে বাইরের পরিবেশের তাপমাত্রার সামঞ্জস্য নষ্ট হয়। ফলে হজমের নানা সমস্যা দেখা দিতে পারে। বিশেষজ্ঞদের মতে, ওয়ার্কআউটের পর যদি ঠাণ্ডা পানির পরিবর্তে পিপাসা মেটাতে উষ্ণ পানি খাওয়া যায়, তবে উপকার পাওয়া যাবে।

দন্ত চিকিত্সক ও বিশেষজ্ঞদের মতে, অতিরিক্ত ঠাণ্ডা পানি খেলে তার ক্ষতিকর প্রভাব পড়ে দাঁতের ভেগাস স্নায়ুর উপর। এই ভেগাস স্নায়ু আমাদের স্নায়ুতন্ত্রের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি অংশ। অতিরিক্ত ঠাণ্ডা পানি খেলে ভেগাস স্নায়ু উদ্দীপিত হয়ে ওঠে। ফলে আমাদের হৃদযন্ত্রের গতি অনেকটাই কমে যেতে পারে।

সুতরাং, আপনারও যদি ইফতারে এভাবে ঠাণ্ডা পানি খাওয়ার অভ্যাস থাকে, তাহলে তা আজই বদলে ফেলুন। না হলে আপনার শরীরে একাধিক স্বাস্থ্য সমস্যা হতে পারে।