সাম্প্রতিক
dav

চুয়াডাঙ্গা জেলা পরিবেশক সমিতি ও আলমডাঙ্গা মুদী ও মনোহারী ব্যবসায়ি সমিতির বিরোধের নিরসন

dav

চুয়াডাঙ্গা জেলা পরিবেশক সমিতির পক্ষ থেকে ভুল স্বীকার ও দুঃখ প্রকাশ করে আলমডাঙ্গা মুদী ও মনোহারী ব্যবসায়ি সমিতির সাথে চলমান বিরোধ মিটিয়ে ফেলা হয়েছে। গতকাল ১ এপ্রিল বিকেলে আলমডাঙ্গা বণিক সমিতির অফিসকক্ষে এ বিরোধ নিষ্পন্ন করেন চুয়াডাঙ্গা ও আলমডাঙ্গার ব্যবসায়ি নেতারা।
জানা গেছে, আলমডাঙ্গা মুদী ও মনোহারী ব্যবসায়ি সমিতির পিকনিককে কেন্দ্র করে চুয়াডাঙ্গা জেলা পরিবেশক সমিতির ৫ ব্যবসায়ির বিরোধ সৃষ্টি হয়। আলমডাঙ্গা মুদী ও মনোহারী ব্যবসায়ি সমিতির পক্ষ থেকে চুয়াডাঙ্গা জেলা পরিবেশক সমিতির ৫ পরিবেশকের পণ্য বিক্রি না করার ঘোষণা দেওয়া হয়। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে তারা আলমডাঙ্গা মুদী ও মনোহারী ব্যবসায়ি সমিতির বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির অভিযোগ তুলে জেলাপ্রশাসক ও পুলিশ সুপার বরাবর লিখিত অভিযোগ জানায়। পরদিন দৈনিক মাথাভাঙ্গাসহ স্থানীয় কয়েকটি পত্রিকায় এ সংক্রান্ত সংবাদ প্রকাশিত হয়। পত্রিকা পড়ে এ চাঁদাবাজির অভিযোগ সম্পর্কে অবহিত হন আলমডাঙ্গা মুদী ও মনোহারী ব্যবসায়ি সমিতির নেতৃবৃন্দ। স্বাভাবিকভাবেই এমন মিথ্যা অভিযোগে ক্ষুদ্ধ হয়ে উঠে আলমডাঙ্গা মুদী ও মনোহারী ব্যবসায়ি সমিতির নেতৃবৃন্দ। ফলে চুয়াডাঙ্গা জেলা পরিবেশক সমিতির সাথে আলমডাঙ্গা মুদী ও মনোহারী ব্যবসায়ি সমিতির সম্পর্কের অবনতি ঘটে। বিরোধের কারণে দুই সমিতির ব্যবসায়িদের মধ্যে ব্যবসা বন্ধ হয়ে যায়।
এমন অচলাবস্থা নিরসনকল্পে হস্তক্ষেপ করেন চুয়াডাঙ্গা চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাজট্রিজের সভাপতি ইয়াকুব হোসেন মালিক, সহসভাপতি মঞ্জুরুল আলম মালিক লার্জ, চুয়াডাঙ্গা দোকান মালিক সমিতির সভাপতি হাজী আশাদুল হোসেন জোয়ার্দ্দার লেমন, সিনিয়র সহসভাপতি আব্দুল কাদের জগলুল, সাধারণ সম্পাদক ইবলুল হাসান জোয়ার্দ্দার, চুয়াডাঙ্গা জেলা পরিবেশক সমিতির সভাপতি হাজী শাহাবুদ্দীন মল্লিক, সাধারণ সম্পাদক হাজী মাসুদুর রহমান, যুগ্ন সম্পাদক হাজী সেলিম রেজা, দপ্তর সম্পাদক রোকন উদ্দীন মিলু, কোষাধ্যক্ষ শামীম রেজা। অন্যদিকে, এ বিরোধ মেটাতে উদ্যোগী হন আলমডাঙ্গা বণিক সমিতির সভাপতি মকবুল হোসেন, সাধারণ সম্পাদক হাজী মীর শফিকুল ইসলাম, আলমডাঙ্গা মিল-চাতাল মালিক সমিতির নেতা আহসান উল্লাহ, মৎস্য ব্যবসায়ি সমিতির সভাপতি কাউন্সিলর মতিয়ার রহমান ফারুক, বৃহত্তর কাপড়পট্টি সমিতির সভাপতি গোলাম রহমান সিঞ্জুল, আলমডাঙ্গা মুদী ও মনোহারী ব্যবসায়ি সমিতির সভাপতি আরেফিন মিয়া মিলন, সাধারণ সম্পাদক আলাউদ্দীন আহমেদ। আলোচনার এক পর্যায়ে গতকাল আলমডাঙ্গায় ছুটে আছেন চুয়াডাঙ্গা চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাজট্রিজ, চুয়াডাঙ্গা জেলা পরিবেশক সমিতি ও চুয়াডাঙ্গা দোকান মালিক সমিতির উপরোক্ত নেতৃবৃন্দ। বিকেলে তারা আলমডাঙ্গা বণিক সমিতির অফিসকক্ষে আলমডাঙ্গার বিভিন্ন ব্যবসায়ী সমিতির নেতৃবৃন্দের সাথে বৈঠকে বসেন। এক পর্যায়ে চুয়াডাঙ্গা জেলা পরিবেশক সমিতির পক্ষ থেকে ভুল স্বীকার ও দুঃখ প্রকাশ করা হয়। এর মাধ্যমে দুটি ব্যবসায়ি সংগঠণের পারষ্পরিক বিরোধ শান্তিপূর্ণভাবে মীমাংসা করা হয়। এ সময় চুয়াডাঙ্গা-আলমডাঙ্গার মানুষের মধ্যে সৌহার্দ্য ও ভ্রাতৃত্ব বৃদ্ধির লক্ষ্যে আলমডাঙ্গার ২ কৃতি সন্তান বাংলাদেশ পুলিশের অ্যাডিশনাল আইজিপি মীর শহীদুল ইসলাম ও মোহাম্মদ শফিকুল ইসলামকে চুয়াডাঙ্গা চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাজট্রিজের পক্ষ থেকে এবং ডায়মন্ড ওয়াল্ডের স্বত্বাধিকারী এফবিসিসিআই পরিচালক দীলিপ কুমার আগরওয়ালা ও সিঙ্গাপুর প্রবাসি আরেক কৃতি ব্যবসায়ি সাহিদুজ্জামান টরিককে আলমডাঙ্গা বণিক সমিতির পক্ষ থেকে সংবর্ধণা প্রদানের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।