সাম্প্রতিক

জব্বারের সঙ্গে জাতীয় পার্টির সম্পর্ক নেই

 একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে জাতীয় পার্টির নেতা ইঞ্জিনিয়ার আব্দুল জব্বারের আমৃত্যু দণ্ডের রায়ে কোনো প্রতিক্রিয়া দেখায়নি জাতীয় পার্টি। দলটির পক্ষ থেকে দাবি করা হচ্ছে আব্দুল জব্বার এখন জাতীয় পার্টির কেউ নন। জাতীয় পার্টির সঙ্গে তার সম্পর্ক অনেক আগেই ছিন্ন হয়েছে।

মঙ্গলবার জব্বারের রায় ঘোষণা করেন আন্তর্জাতিক যুদ্ধাপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১। এ রায়ে তার বিরুদ্ধে আনীত পাঁচটি অভিযোগই প্রমাণিত হয়েছে। এরমধ্যে চারটিতে আমৃত্যু কারাদণ্ড এবং একটিতে ২০ বছর কারাদণ্ড ও আর্থিক জরিমানা করা হয়।
রায়ের বিষয়ে জানতে চাইলে জাতীয় পার্টির মহাসচিব জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু ঢা বলেন, ‘আব্দুল জব্বার এক সময়ে জাতীয় পার্টির নেতা ছিলেন। এখন তিনি জাতীয় পার্টির কেউ নন। আব্দুল জব্বারের সঙ্গে বর্তমানে জাতীয় পার্টির কোনো ধরনের সম্পর্কে নেই। তাকে নিয়ে জাতীয় পার্টির প্রতিক্রিয়া দেখানোর কিছু নেই।’
একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ার শান্তি (পিস) কমিটির চেয়ারম্যান ছিলেন ইঞ্জিনিয়ার আব্দুল জব্বার। ১৯৮৮ ও ১৯৮৬ সালে জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্য ছিলেন ইঞ্জিনিয়ার জব্বার। ৮০ বছর বয়সী জব্বার যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডায় ছেলে-মেয়ের কাছে পালিয়ে আছেন বলে ধারণা করছেন প্রসিকিউশন।
এরআগে জাতীয় পার্টির আরেক নেতা সৈয়দ মোহাম্মদ কায়সারের মৃত্যুদণ্ড দিয়েছিল ট্রাইব্যুনাল। সেসময়ের প্রতিক্রিয়ায় জিয়াউদ্দিন বাবলু জানিয়েছিলেন, ‘কায়সার একজন চিহ্নিত যুদ্ধাপরাধী জানার পর পার্টির চেয়ারম্যান তাকে দল থেকে বহিষ্কার করেন। যার ফলে দীর্ঘদিন ধরে তার জাতীয় পার্টির রাজনীতির সাথে কোন সম্পৃক্ততা নেই।’