সাম্প্রতিক

মেদ ঝরাবে যেসব খাবার

পেটের মেদ নিয়ে যারা চিন্তিত তাদের জন্য থাকছে মেদ কমানোর কয়েকটি সহজ উপায়। সঠিক খাদ্যাভ্যাস ও ব্যায়ামের পাশাপাশি হাতের কাছেই পাওয়া কিছু প্রাকৃতিক উপাদান নিয়মিত খেলে কমে যাবে পেটের মেদ।

শরীরকে মেদহীন ছিপছিপে করে তোলা না গেলেও ডায়েটে পরিবর্তন ও কম ক্যালোরির খাবার অল্প কয়েক দিনেই মেদ কমায়।

আসুন জেনে নেই এমন কিছু খাবার সম্পর্কে যা খেলে মেদ ঝরবে।

শশা

শশায় বেশির ভাগই পানি। তাই হজমে সাহায্য করে শরীরে জমতে দেয় না বাড়তি ফ্যাট। এক কাপ শশার রসে মাত্র ৮ ক্যালোরি থাকে। কম ক্যালোরি কিন্তু উচ্চ ফাইবারের এই ফল মেদ কমাতে ভীষণ কার্যকর।

ব্রকোলি

ক্যানসার প্রতিরোধক এই সব্জিতে রয়েছে উচ্চ পুষ্টিগুণ। এক কাপ ব্রকোলিতে মেলে ৩২ ক্যালোরি। এর অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট রোগ প্রতিরোধ তো করেই সঙ্গে মেদও ঝরায় ঝটপট।

লেটুস

এক কাপ লেটুসে আছে ৩৪ ক্যালোরি। শরীর সচেতন মানুষরা স্যালাডে যোগ করেন এই শাক। এর পুষ্টিগুণ যেমন প্রচুর তেমনই এতে রয়েছে পর্যাপ্ত ভিটামিন কে। রক্ত পরিশুদ্ধ রাখতে, রক্ত জমাট বাঁধতে সাহায্য করে লেটুস। কম ক্যালোরির খাবার হওয়ায় শরীরের বেড়তি মেদকেও সরিয়ে দিতে ওস্তাদ এই শাক।

পেঁপে

ভিটামিন এ-র প্রাচুর্য থাকায় এই সব্জি ডায়ারিয়া রুখে দিতে ওস্তাদ। শিশুদের ক্ষেত্রে উচ্চতা বাড়াতেও সাহায্য করে এই সব্জি। এক কাপ পেঁপেয় পাওয়া যায় ৫৫ ক্যালোরি। ওজন কমাতে পুষ্টিবিদরাও ভরসা করেন একে। স্যালাড বা ঝোলে পেঁপে রাখলে তা শরীরের পটাশিয়ামের চাহিদা পূরণ করে ও মেদ কমায়।

পালং

ভিটামিন ও খনিজে ভর্তি এই শাক ওজন কমাতে খুব উপকারী। ছিপছিপে চেহারা চান, আর ডায়েটে পালং রাখেননি, এমন মানুষ খুঁজে পাওয়াই দুষ্কর। এক কাপ পালংয়ে মেলে সাত ক্যালোরি।

টম্যাটো

রক্তচাপ কমাতে ও কার্ডিওভাসকুলারের অসুখ সারাতে টম্যাটোর জুড়ি নেই। এক কাপ টম্যাটো থেকে পাওয়া যায় ২৭ ক্যালোরি। পটাশিয়াম ও ভিটামিন সি-তে ভরপুর এই সব্জিতে ফাইবার প্রচুর। মেদ ঝরাতে টম্যাটোর সুপ অত্যন্ত কার্যকর।

তরমুজ

তরমুজে আছে প্রচুর পানি। ভিটামিন সি ও ফাইবারে ঠাসা এই ফল ওজন কমায়। প্রতি কাপে মেলে ৪৬ ক্যালোরি। তরমুজ লিভারকে ঠান্ডা রাখে।

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল প্রকাশ করা হবে না

error: Content is protected !!