সাম্প্রতিক

ভারতের বিশ্বখ্যাত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান আইআইটি জয় করলেন আলমডাঙ্গা গোবিন্দপুরের মেয়ে তনি

রহমান মুকুলঃ ভারতের বিশ্বখ্যাত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান আইআইটি জয় করলেন আলমডাঙ্গা গোবিন্দপুরের মেয়ে শামসাদ মাহমুদা ফাতিমা তনি। তনি সর্বোচ্চ অ্যাকাডেমিক রেজাল্টসহ রিসার্চে বিশেষ অবদানের জন্য গোল্ড মেডেল অ্যাওয়ার্ড পেয়েছেন। আলমডাঙ্গার গোবিন্দপুরের মেয়ে শামসাদ মাহমুদা ফাতিমা তনি। শামসুজ্জোহা সাবু ও সাহেদা খাতুন দম্পতির ৩ কন্যার মধ্যে ২য় সন্তান। বড় মেয়ে উম্মে জোবায়দা পড়ালেখা শেষ শিক্ষকতাকে পেশা হিসেবে নিয়েছেন। ছোট মেয়ে শাকিলা মাহমুদা ফাতিমা সাফল্যের সাথে ঢাকা মেডিকেল কলেজ থেকে এ বছর এমবিবিএস পাশ করেছেন। মেঝোকন্যা তনি। শামসাদ মাহমুদা ফাতিমার ডাকনাম তনি। তনি পুরো শিক্ষা জীবনে অসামান্য কৃতিত্বের স্বাক্ষর রেখেছেন। ।নিজ গ্রামে অবস্থিত আলমডাঙ্গা মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষা জীবন শুরু করেন। প্রতি ক্লাসে ১ম স্থান ছিল নির্ধারিত। ১৯৯৭ সালে ১ম স্থান অধিকার করেই ৫ম শ্রেণি পাশ করেন। ভর্তি হন আলমডাঙ্গা পাইলট মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ে। মাধ্যমিক পর্যায়েও ১ম হওয়ার ধারাবাহিকতা অক্ষুণ্ণ রাখেন। ২০০৩ সালে এসএসসি পরীক্ষায় আলমডাঙ্গা কেন্দ্রে ১ম হওয়ার গৌরব অর্জন করেন। সাফল্যের এ ধারা অহ্যাহত ছিল এইচ এসসি পরীক্ষার ফলাফলেও। ২০০৫ সালে আলমডাঙ্গা ডিগ্রী কলেজ থেকে এইচএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়েও কেন্দ্রে ১ম হন। এরপর ভর্তি হন রুয়েটে ( রাজশাহী ইউনিভার্সিটি অব ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড টেকনোলজি) সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং অনুষদে । রুয়েট থেকে ২০১০ সালে সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং-এ অনার্স সম্পন্ন করেন ১ম শ্রেণিতে ৪র্থ স্থান অধিকার করে। এর পরপর পানি উন্নয়ন বোর্ডে যোগ দেন। বর্তমানে পানি উন্নয়ন বোর্ডের সাব-ডিভিশনাল ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে কর্মরত। পরে ২০১৬ সালে এমএস ভর্তি হন ভারতের বিশ্ববিখ্যাত প্রকৌশল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান আই আইটি(রুড়কী) ইন্ডিয়ান ইন্সটিটিউট অব টেকনোলজি -তে। অধ্যায়নের বিষয় ছিল মাস্টার্স অব টেকনোলজি ইন হাইড্রোলজি। এ বছর মাস্টার্সে ( এম, টেক) সর্বোচ্চ ফলাফল অর্জনের গৌরব লাভ করেন। তিনি ১ম শ্রেণিতে ডিস্টিঙ্কশনসহ মোট ১০ পয়েন্টের মধ্যে সর্বোচ্চ ৯’৫৭১ অর্জন করেন। এ অনন্য সাফল্য অর্জনের জন্য সম্প্রতি আইআইটি তাকে গোল্ড মেডেল অ্যাওয়ার্ডে ভূষিত করেছে। উল্লেখ্য, আইআইটি ( ইন্ডিয়ান ইন্সটিটিউট অব টেকনোলজি ) ভারতের কারিগরি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান হিসেবে বিখ্যাত।২০০৫ – ২০০৬ শিক্ষাবর্ষ থেকে এটিপৃথিবীর ১ম সারির কারিগরি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের মর্যাদা পেয়ে আসছে। বর্তমানে ভারতে আইআইটির ৬টি শাখা রয়েছে। ১৯৫১ সালে তৎকালীন মুখ্যমন্ত্রী বিধান চন্দ্র রায় আইআইটি প্রতিষ্ঠা করেন।

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল প্রকাশ করা হবে না