সাম্প্রতিক

যুবলীগ ও ছাত্রলীগ সমাবেশ ডাকায় পুলিশি বাধাঁয় পন্ড: যুবলীগের তাৎক্ষনিক প্রতিবাদ সমাবেশ

মুন্সিগঞ্জ প্রতিনিধি: আলমডাঙ্গার মুন্সিগঞ্জ একাডেমী ফুটবল মাঠের একই স্থানে আওয়ামী লীগ যুবলীগ ও ছাত্রলীগ সমাবেশ ডাকায় পুলিশের বাধাঁর মুখে বন্ধ হয়ে গেছে। গতকাল মঙ্গলবার বিকাল ৩ টার দিকে একই স্থানে এই সমাবেশের আয়োজন করা হয়। আলমডাঙ্গা উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তা নির্বাহী আদেশে আলমডাঙ্গা থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা উক্ত সমাবেশ বন্ধ করেছে দিয়েছে। আওয়ামী লীগ ও যুবলীগের সমাবেশ বন্ধ হয়ে গেলে জেহালা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে কর্মি সমাবেশ ও ইফতার মাহফিল করে। এছাড়া ইউনিয়ন যুবলীগ জেহালা পান হাটে প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে। জানা গেছে, গতকাল মঙ্গলবার বিকাল ৩ টার দিকে আলমডাঙ্গার মুন্সিগঞ্জ ফুটবল মাঠে তৃবার্ষিক সম্মেলন ও আলোচনা সভার আয়োজন করে। অপর দিকে একই স্থানে জেহালা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ ও ছাত্রলীগ ইফতার মাহফিলের আয়োজন করে। একই স্থানে তিনটি সংগঠনের আয়োজন করায় সকাল থেকে উক্ত স্থানে পুলিশ মোতায়েন করে। উক্ত সমাবেশ পুলিশি বাধাঁর মুখে বন্ধ হয়ে যায়। বেলা ৪ টার দিকে জেলা যুবলীগের আহবায়ক নঈম হাসান জোয়ার্দ্দার সমাবেশ স্থলে আসেন ও আলমডাঙ্গা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও পুলিশের সঙ্গে কথা বলেন। পুলিশ আইন সৃংখলা পরিস্থিতি নিয়োন্ত্রনে রাখতে যুবলীগের নেতা কর্মিদের সভাস্থল ত্যগ করার নির্দেশ দিলে যুবলীগের নেতা কর্মিরা উত্তেজিত হয়ে পড়ে ও পুলিশের সঙ্গে বাকবিতন্ডায় জড়িয়ে পড়ে। এ ব্যপারে আলমডাঙ্গা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আসাদুজ্জামান মুন্সি বলেন, মুন্সিগঞ্জ একাডেমী স্কুল মাঠে আওয়ামী লীগ যুবলীগ ও ছাত্রলীগ একই দিনে একই সময় একই স্থানে সমাবেশের আয়োজন করে। এখানে দুর্ঘনা ঘটতে পারে আইন সৃংখলা পরিস্থিতি অবনতি ঘটতে পারে সেই জন্য তারা নিজেরাই এই স্থান ত্যাগ করে চলে গেছে। এখানে আইন সংখলা পরিস্থিতি অবনতি হয়নি, আইন শৃখলা অবনতি হলে আমরা ব্যবস্থা নেব। এ ব্যপারে আলমডাঙ্গা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রাহাত মান্নান বলেন, এখানে সমাবেশ করার জন্য কোন ব্যক্তি অনুমোদন নেয়নি এ জন্য নির্বাহী আদেশ পেয়ে সভা সমাবেশ করতে দেওয়া হয়নি। অপর দিকে মুন্সিগঞ্জ ফুটবল মাঠে যুবলীগের সম্মেলন বন্ধ হয়ে গেলে, ইউনিয়ন যুবলীগের আয়োজনে জেহালা পান হাট চত্তরে তাৎক্ষনিক প্রতিবাদ সমাবেশের আয়োজন করে। উক্ত প্রতিবাদ সমাবেশে জেলা যুবলীগের আহবায়ক নঈম হাসান জোয়ার্দ্দার বক্তব্য দিতে গিয়ে বলেন, পুলিশি বাধাঁর মুখে আজকের সমাবেশ বন্ধ হয়ে গেছে। এটা খুবই দুঃখজনক, কিছু লোক যুবলীগের বিরুদ্ধে উঠে পড়ে লেগেছে। আমাদের সঙ্গে রাজনিতিতে না পেরে আমাদের পিছনে পুলিশ লেলিয়ে দিয়ে সভা সমাবেশ বন্ধ করে দিয়েছে। এছাড়া উক্ত সভায় বক্তব্য রাখেন জেলা যুবলীগের সদস্য আজাদুল ইসলাম আজাদ, হাফিজুর রহমান হাপু, আরিফ হোসেন, তপন কুমার, জেহালা ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারন সম্পাদক মাকলেচুর রহমান শিলন, সাংগঠনিক সম্পাদক বকুল হোসেন সহ যুবলীগ নেতা হিলালাল। উপস্থিত ছিলেন ইউপি সদস্য হাসিবুল, জনি, আব্দুল মজিদ সহ আলমগীর প্রমুখ। এ ব্যপারে জেহালা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের যুগ্ন আহবায়ক হাসানুজ্জামান হান্নান বলেন, গতকাল মঙ্গলবার বিকাল ৩ টার দিকে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে আওয়ামী লীগ ও ছাত্রলীগ কর্মি সমাবেশ ও ইফতার মাহফিলের আয়োজন করি। উক্ত স্থানে সমাবেশ করতে গেলে পুরিশি বাধাঁর মুখে মুন্সিগঞ্জ পশুহাটের ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের পার্টি অফিসে কর্মি সমাবেশ করি। অপর দিকে ইউনিয়ন আওয়ামী ও ছাত্রলীগের আয়োজনে মুন্সিগঞ্জ পশুহাটস্থ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে ইফতার মাহফিল ও কর্মি সমাবেশের আয়োজন করে। উক্ত সভায় সভাপতি ছিলেন জেহালা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের যুগ্ন আহবায়ক হাসানুজ্জামান হান্নান, প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মোহাইমেন হাসান জোয়ার্দ্দার অনিক। বিশেষ অতিথি ছিলেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ নেতা আবু তাহের, ডা: জাহান আলী, রেফাউল, আব্দুল মজিদ সহ ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি মঈন উদ্দিন ও আলম, কালাম, ছাত্রলীগ নেতা সাদ্দাম প্রমুখ।