সাম্প্রতিক

আলমডাঙ্গায় স্ত্রীকে বটি দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করে নিজে গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা


হাটবোয়ালিয়া প্রতিনিধিঃ স্ত্রীকে কুপিয়ে হত্যা করে নিজে গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করেছে আলমডাঙ্গা উপজেলার বড়বোয়ালিয়া গ্রামের ইবাদত হোসেন নামের এক কৃষক। গতকাল ২০ মার্চ রাত সাড়ে ৯টার দিকে এ হৃদয়বিদারক ঘটনা ঘটে।
জানা গেছে, আলমডাঙ্গা উপজেলার বড়বোয়ালিয়া গ্রামের মাটিপালা নামক স্থানের বাসিন্দা মৃত নায়েক জোয়ার্দ্দারের ছেলে ইবাদত হোসেনের (৫৫)। স্ত্রী জাহানারা খাতুন, এক ছেলে, ছেলের বউ ও ১ মেয়ে নিয়ে দিনমজুর ইবাদত হোসেনের সংসার। মেয়ে বিয়ে দিয়েছেন। ছেলে আশা বউ নিয়ে একই বাড়িতে পৃথক। প্রতিবেশি নৈশ্য প্রহরী মতিয়ার আলী জানান, আধপাগলা ও বদমেজাজী ইবাদত হোসেন প্রায় স্ত্রী জাহানারা খাতুনকে (৪৮) মারধর করত। গতকাল রাত সাড়ে ৯টার দিকে মতিয়ার আলী যখন ডিউটিতে যান সে সময় জাহানারা খাতুন ঘরের ভেতর থেকে তাকে মেরে ফেললো বলে চেঁচাচ্ছিলেন। কিন্তু কেউ এগিয়ে যাচ্ছিলেন না। এমনকি ছেলেও যায়নি। প্রায়ই এমন ঘটনা ঘটে বলেই কেউ সিরিয়াসভাবে নেইনি বলে দাবি করেন মতিয়ার আলী। এক পর্যায়ে জাহানারা খাতুনের আত্মচিৎকারে পরিণত হলে তিনি ছুটে যান। দরজা বন্ধ দেখে হাটবোয়ালিয়া ফাঁড়ি পুলিশকে অবহিত করেন। পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে ঘরের ভেতর ক্ষত-বিক্ষত জাহানারা খাতুনের লাশ পড়ে থাকতে দেখতে পায়। পাশেই ঘরের আড়ার সাথে মাফলার পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করা ইবাদত আলীর লাশ দেখতে পায়। প্রত্যক্ষদর্শিরা জানান, জাহানারা খাতুনের বাম হাত কবজি থেকে কেটে ফেলা হয়েছে। গলা কুপিয়ে কেটে ফেলা হয়েছে।
সংবাদ পেয়ে রাতেই আলমডাঙ্গা থানা অফিসার ইনচার্জ মুন্সি আসাদুজ্জামান ঘটনাস্থলে ছুটে যান। তিনি বলেন, ইবাদত আলী পাগলাটে ছিল। প্রথমে সে ধারাল বটি দিয়ে স্ত্রীকে কুপিয়ে হত্যা করে। পরে নিজে গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করেছে। এ রিপোর্ট লেখা অবধি লাশ দুটি উদ্ধারের প্রক্রিয়া চলছিল।