সাম্প্রতিক

আলমডাঙ্গার বড় হাঁপানিয়া গ্রামে প্রতিপক্ষের লোকজনের বাড়ি ভাঙচুর মামলার ২ আসামি গ্রেফতার


চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি: পূর্ব শত্রুতাকে কেন্দ্র করে আলমডাঙ্গার বড় হাঁপানিয়া গ্রামে প্রতিপক্ষের লোকজনের বাড়িতে হামলার ঘটনায় ২ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।
জানা গেছে, আলমডাঙ্গা উপজেলার বড় হাঁপানিয়া গ্রামে প্রতিপক্ষের বাড়িতে হামলা ও ভাংচুর করা হয়েছে। এ ব্যাপারে বড় হাঁপানিয়া গ্রামের ইউনুস আলীর ছেলে ইমতাদুল মেম্বর বাদী হয়ে নির্দিষ্ট করে ২২ জনের নাম উল্লেখসহ ও আরও অজ্ঞাত ১৫/২০ জনের নামে আলমডাঙ্গা থানায় লিখিত্য এজাহার দায়ের করেছেন। এজাহারে উল্লেখ করা হয়েছে যে, গত ২৪ মার্চ উপজেলা নির্বাচনের ভোট গণণার পর তারা যখন বাড়ি ফিরছিলেন তখন দেশীয় অস্ত্রে সজ্জিত হয়ে তাদের পক্ষের অনেকের বাড়িতে হামলা করেছে প্রতিপক্ষ একই গ্রামের মৃত ইসমাইলের ছেলে মহিবুল ইসলাম মন্টুর নেতৃত্বে। সে ময় বাদী ইমতাদুল মেম্বরের বাড়ির সামনে ৩টি ও আব্দুর রহিমের বাড়ির সামনে ১টি হাত বোমা নিক্ষেপ করেছে।
এদিকে, সরেজমিনে ঘুরে জানা গেছে, হামলাকারিরা বড় হাঁপানিয়া গ্রামের উত্তরপাড়ায় হামলা চালায়। সে সময় ইমতাদুলের বাড়ির আসবাবপত্র ভাংচুর ছাড়াও মৃত ইবারত মন্ডলের ছেলে আব্দুর রহিম, মৃত নবীছদ্দীনের ছেলে আরশাদ আলী, ইবারত আলীর ছেলে ইয়াছদ্দীন, আশাদুল ইসলামের ছেলে সোহাগ, মৃত কাউসারের ছেলে নুরুদ্দীন, চেতন আলীর ছেলে আজিজুল, মৃত মোহাব্বতের ছেলে লুতফুর রহমান, কাউসারের ছেলে আতিয়ার, খেদ আলীর ছেলে মনির উদ্দীনের বাড়িতে চড়াও হয়ে ইটপাটকেল ছুঁড়ে মারে। আসবাবপত্র ভাঙ্গচুর করে। এছাড়া নূরুদ্দীন ও জাহের আলীর বিদ্যুৎ মিটার ভাঙচুর করেছে। তবে কোথাও হাত বোমা বিষ্ফোরণের প্রমাণ পাওয়া যায়নি। গ্রামের অনেকেই জানিয়েছেন, মন্টু গ্রুপের সাথে ক্ষতিগ্রস্তদের দীর্ঘদিনের শত্রুতা। এই শত্রুতার জন্য ২০১৭ সালে প্রাণও দিতে মন্টুর খালাতো ভাই জয়নাল আবেদীনকে।
অন্যদিকে, এ ভাংচুরের মামলায় পুলিশ গ্রেফতার করেছে মৃত আজহার আলীর ছেলে হায়দার আলী ও মৃত সাদেক আলীর ছেলে বদর উদ্দীন বুড়োকে। গত পরশু রাতেই পুলিশ তাদেরকে গ্রেফতার করে।