সাম্প্রতিক

এসএসসি পরীক্ষার্থী মেধাবী উর্মির করুণ কাহিনী

পরীক্ষা শেষে হল থেকে বের হয়ে পরীক্ষার্থী জানলেন যে বাবার থেকে দোয়া নিয়ে পরীক্ষা দিতে এসেছিলেন তিনি আর বেঁচে নেই।

না ফেরার দেশে চলে গেছেন মাথার ওপরের ছায়া। শনিবার এমন মর্মান্তিক ঘটনা ঘটেছে সাতক্ষীরার তালা উপজেলার খেশরা ইউনিয়নের ডুমুরিয়া গ্রামে।

খেশরা ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ও পূর্ব ডুমুরিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক এসএম লিয়াকত হোসেন বলেন, শনিবার সকাল ১০টার আগে পরীক্ষা দেয়ার জন্য উর্মি সুলতানা পরিবারের সবার দোয়া নিয়ে বাড়ি থেকে বের হয়।

মেয়ের মাথায় হাত বুলিয়ে দোয়া করে জমিতে সেচ দিতে ক্ষেতে যান খোকন সরদার।

সেচ দিতে শ্যালো মেশিন চালু করলে হঠাৎ বুকে ব্যথা ওঠে খোকন সরদারের।

কাছাকাছি এক চিকিৎসকের কাছে নেয়ার পথেই তার মৃত্যু হয় বলে জানান এসএম লিয়াকত হোসেন।

এদিকে এসএসসি পরীক্ষার্থী উর্মি যেন জানতে না পারেন যে তার বাবা আর নেই, সে জন্য উর্মিকে অন্য পথ দিয়ে পরীক্ষাকেন্দ্রে নিয়ে যাওয়া হয় বলে জানান সাবেক চেয়ারম্যান এসএম লিয়াকত হোসেন।

পরীক্ষা শুরুর ১০ মিনিট আগে উর্মিকে কেন্দ্রে দিয়ে কেন্দ্র সচিবকে বিষয়টি জানানো হয়।

খেশরা ইউনিয়নের ডুমুরিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা জানান, মেধাবী ছাত্রী উর্মি সুলতানা। টেস্ট পরীক্ষায় গোল্ডেন এ প্লাস পেয়েছে মেয়েটি।

এসএসসি পরীক্ষায় উর্মির ফল অনেক ভালো হবে বলে আশাবাদী খেশরা ইউনিয়নের ডুমুরিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা।

বাবা হারিয়ে শোকাহত মেধাবী ছাত্রী উর্মি তার পরবর্তী পরীক্ষাগুলো ঠিকভাবে দিতে পারবে কিনা সে বিষয়ে এখন বেশ চিন্তিত উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষকসহ উর্মির পরিবার।

পরীক্ষা শেষে মেয়ে বাড়ি ফিরলে বিকালে খোকন সরদারের দাফন সম্পন্ন হয়।