সাম্প্রতিক

যশোর শহর যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক ম্যানসেল গুলিবিদ্ধ

যশোর শহর যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক অসুস্থ মেহবুব রহমান ম্যানসেল (৩০) গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। ঘটনাটি ঘটেছে রোববার রাত আড়াইটার দিকে যশোর শহরের ষষ্টীতলাপাড়া এলাকায়।

মাহবুবুর রহমান ম্যানসেল শহরের ষষ্ঠীতলা এলাকার আলমাস হোসেনের ছেলে। তিনি স্থানীয় সংসদ সদস্যদের আনুকূল্যে যুবলীগের সাথে যুক্ত। তার নামে হত্যা, চাঁদাবাজি, ডাকাতিসহ অসংখ্য মামলা রয়েছে।

আহতের পরিবার অভিযোগ, পুলিশ ম্যানসেলকে ঘর থেকে তুলে নিয়ে বাম পায়ে গুলি করে। তবে পুলিশ এ অভিযোগ অস্বাীকার করেছে।

পুলিশের দাবি, দু’পক্ষের গোলাগুলির খবর পেয়ে তারা ঘটনাস্থলে যায় এবং গুলিবিদ্ধ অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করে দেয়া হয়েছে।

আহতের বাবা মোহাম্মদ আলমাস বলেন, ‘রাতে ম্যানসেল তাদের বাসার নিচতলায় ঘুমিয়ে ছিল। রাত আড়াইটার দিকে সাদা পোশাকের একদল পুলিশ গোটা এলাকা ঘিরে ফেলে। এরপর তারা ম্যানসেলকে তুলে নিয়ে বাড়ির ছাদে নিয়ে যায়। পরে গুলির শব্দ শুনি। আমরা কেউ ঘটনাস্থলে যেতে পারিনি। কেননা বাড়ির দরজা পেছন থেকে আটকিয়ে দেয়া হয়েছিল। পরে হাসপাতালে গিয়ে দেখি তার বাম পায়ে গুলির জখম।’

যোগাযোগ করা হলে যশোর জেলা যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মঈনুদ্দিন মিঠু বলেন, ‘ম্যানসেল কিছুদিন আগে স্ট্রোক করেন। তার শরীরের ডানপাশ প্রায় অবশ। তিনি বাড়িতেই বেশির ভাগ সময় থাকতেন। গতরাতে পুলিশের সাথে মুখবাঁধা অবস্থায় শহরের চিহ্নিত কতিপয় সন্ত্রাসী অংশ নেয় এবং তারা ষষ্টীতলাপাড়া এলাকায় ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করে।’

যশোর জেনারেল হাসপাতালের অর্থোপেডিক সার্জন আব্দুর রউফ জানান, ‘আহতের শরীর থেকে প্রচুর রক্তক্ষরণ হচ্ছে। দ্রুতসময়ের মধ্যে ঢাকায় নিয়ে উন্নত চিকিৎসা করালে হয়তো তার পা রক্ষা করা যাবে।’

জানতে চাইলে যশোর কোতোয়ালি থানার ওসি অপূর্ব হাসান বলেন, ‘রাত দুইটার দিকে আমরা খবর পাই ষষ্টীতলাপাড়া এলাকায় দু’পক্ষের মধ্যে গোলাগুলি হচ্ছে। খবর পেয়ে আমরা ঘটনাস্থলে যাই এবং ম্যানসেলকে রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করে দেই।’

তিনি বলেন, ‘পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে তিনটি বিদেশি পিস্তল ও ১২ রাউন্ড গুলি উদ্ধার করেছে। কারা এই ঘটনার সাথে যুক্ত তা এখনও জানা সম্ভব হয়নি। পুলিশ বিষয়টি খতিয়ে দেখছে।’

উল্লেখ্য, শনিবার রাতে যশোর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সদর উপজেলা পরিষদ চেয়াম্যান শাহীন চাকলাদারের বাসভবনসহ ৭টি স্থানে বোমা হামলার ঘটনায় ম্যানসেলসহ কয়েকজনকে দায়ী করেছিল এ পক্ষের লোকজন। ম্যানসেল বিপক্ষ যশোর-৩ আসনের সংসদ সদস্য কাজী নাবিল গ্রুপের সদস্য।