সাম্প্রতিক

স্নায়ুর ক্ষতির কিছু কারণ

image-40160-1475473336সাধারণত রক্তবাহ সমন্বিত এবং পেরিনিউরিয়াম নামক যোগকলার আবরণ দ্বারা আবৃত এক বা একাধিক স্নায়ুতন্তু বা স্নায়ুতন্তুগুচ্ছকে নার্ভ বা স্নায়ু বলে। এর মধ্য দিয়েই আমাদের শরীরের বিভিন্ন অংশের বার্তা মস্তিষ্কের স্পাইনাল কর্ডে পৌঁছায়। এর ফলে আমরা প্রতিক্রিয়া জানাতে পারি। তবে কোন কারণে এই স্নায়ুগুলোতে ব্যথা হলে কিংবা ক্ষতি হলে তা মস্তিষ্কে ঠিকমতো বার্তা পৌঁছাতে পারে না। এতে আমাদের স্বাভাবিক জীবনযাত্রাও ব্যাহত হয়।

বিশেষজ্ঞরা বলেছেন, সাধারণত দীর্ঘমেয়াদি ব্যথাই স্নায়ুর ব্যথা এবং ক্ষতির জন্য দায়ী। আবার আঘাত, চাপ কিংবা অন্যান্য শারিরীক সমস্যার কারণেও স্নায়ুগুলো ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে।

তবে কোন নার্ভ বা স্নায়ু ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে তার ওপর নির্ভর করে রোগের লক্ষণ কেমন হবে তা। সাধারণত আক্রান্ত অংশে ব্যথা হয়, অবশ অবশ ভাব হয়। একই সঙ্গে বদ হজম, প্রস্রাবে অসুবিধা, রক্তনালি ও হার্টের সমস্যাও হতে পারে। কিছু ক্ষেত্রে লক্ষণগুলো তেমন তীব্র হয় না। কিন্তু বেশির ভাগ মানুষের ক্ষেত্রে লক্ষণ তীব্র হয়, যা রোগীর মৃত্যুর কারণ হতে পারে।

বিশেষজ্ঞরা বলেন, বিভিন্ন ভাবেই স্নায়ুগুলো ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে। এর কারণ একটি কিংবা দুটি নয়, বরং হাজার হাজার কারণ আছে। এর মধ্যে পরিফেরাল নার্ভ ডেমেজ (হাত ও পায়ের স্নায়ু বেশি আক্রান্ত হয়) বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে বাড়তে থাকে। ডায়াবেটিসে প্রতি তিনজনে একজনের সাধারণত পরিফেরাল নার্ভের ক্ষতি হয়।

তবে স্নায়ুর ক্ষতির কারণ সম্পর্কে এখনও এক তৃতীয়াংশ লোকই জানেনা।

আবার অটো-ইমিউন রোগের কারণেও স্নায়ুর ব্যথা কিংবা ক্ষতি হতে পারে।

এছাড়া ক্যান্সারের কারণে স্নায়ুর ব্যথা এবং ক্ষতি হতে পারে। সুনির্দিষ্ট কিছু ক্যান্সার রোগে শরীরে পুষ্টির অভাব দেখা দেয় যা স্নায়ুগুলোর স্বাভাবিক কার্যক্রমে ব্যাঘাত ঘটায়। শুধু তাই নয়, এ রোগে কেমোথেরাপি এবং রেডিওথেরাপি নেওয়ার কারণেও স্নায়ুর ব্যথা এবং ক্ষতি হয়।

বিশেষজ্ঞরা বলেছেন, স্নায়ুগুলো আমাদের অজ্ঞান হওয়াসহ শরীরের আরও নানা সমস্যা বিশেষ করে উচ্চ রক্তচাপ, হজম, শরীরের তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণ প্রভৃতি কাজ করে থাকে। মূলত এগুলো আমাদের সব ধরনের কার্যক্রমই নিয়ন্ত্রণ করে। এগুলো ত্বক এবং মাংসপেশী থেকে নানা বার্তা গ্রহণ করে তা আমাদের ব্রেনের স্পাইনাল কর্ডে পাঠায়। কাজেই কোন কারণে স্নায়ুগুলো ক্ষতিগ্রস্ত হলে আমাদের স্বাভাবিক জীবনযাত্রা ব্যাহত হয়।

তারা আরও বলেছেন, প্রায় শতকরা ৫০ ভাগ লোকেরই স্নায়ুর ক্ষতির কারণ হলো ডায়াবেটিস। কাজেই স্নায়ুর ব্যথা কিংবা কোন ক্ষতি বুঝতে পারলেই সঙ্গে সঙ্গে চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। একইসঙ্গে খাদ্যতালিকা, নিয়মতান্ত্রিক জীবনযাপন এবং ওষুধ সেবন করুন। এতে স্নায়ুগুলো ক্ষতির হাত থেকে রেহাই পাবে। সেইসঙ্গে বাঁচতে পারবেন আপনিও।