সাম্প্রতিক

বিএনপির অভিযোগ ঢালাও, নির্দিষ্ট প্রস্তাব পেলে ব্যবস্থা

জেলা প্রশাসক, ডিআইজিসহ মাঠ প্রশাসনের কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে বিএনপি যে অভিযোগ ও রদবদলের প্রস্তাব দিয়েছে সেটিকে ‘ঢালাও’ মন্তব্য করেছেন নির্বাচন কমিশন সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ। বলেছেন, ঢালাও অভিযোগ ও রদবদলের প্রস্তাব ইসি গ্রহণ করবে না।

আজ মঙ্গলবার বিকালে নির্বাচন কমিশন ভবনে সাংবাদিকদের এক ব্রিফিংয়ে এসব কথা বলেন ইসি সচিব।

তিনি বলেন, ঢালাও রদবদল প্রস্তাব ইসি গ্রহণ করবে না। অভিযোগ স্পেসিফিক (সুনির্দিষ্ট) হতে হবে। সুনির্দিষ্ট অভিযোগ থাকলে তা তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সমতল ক্রীড়াভূমি তৈরি করা হয়নি উল্লেখ করে ইসি কর্মকর্তাসহ কয়েকজন কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে মঙ্গলবার বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ইসিকে চিঠি দেন।

চিঠিটি পৌছেন দলের যুগ্ম মহাসচিব মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল।

বিএনপির অভিযোগ ইসি সচিব হেলালুদ্দীনের বিরুদ্ধেও ছিল। এ বিষয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নে হেলালুদ্দীন বলেন, সচিব ইসির মুখপাত্র। ইসি সচিবের আলাদা সত্ত্বা নেই। কমিশনই সব সিদ্ধান্ত সিদ্ধান্ত নেয়; সচিব তা বাস্তবায়ন করে ও সাচিবিক দায়িত্ব পালন করে।

বিএনপির চিঠিতে এক যুগ্ম সচিব, ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) কমিশনার ও পুলিশের মতিঝিল বিভাগের উপকমিশনারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার কথা বলা হয়েছে।

বিএনপির চিঠিতে বলা হয়েছে, ইসি আচরণবিধি মানার নামে একটি চিঠি দিয়ে নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে দলের শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিতে বিঘ্ন সৃষ্টি এবং নিরপরাধ নেতা-কর্মীদের বিরুদ্ধে মামলা দায়েরে ইন্ধন জুগিয়েছে।

চিঠিতে বিএনপি বলেছে, তফসিল ঘোষণার পর সরকারি দল ৯ নভেম্বর থেকে ১২ নভেম্বর পর্যন্ত রাস্তা বন্ধ করে, জনদুর্ভোগ সৃষ্টি করে মনোনয়নপত্র বিতরণ করেছে। এ সময় তাদের নিজেদের প্রার্থীদের মধ্যে সংঘর্ষে দুজন মারা গেছে।

এই ঘটনায় পুলিশের কোনো তৎপরতা দেখা যায়নি। কিন্তু আচরণবিধির খড়্গ নেমে আসে বিএনপির ওপর। ইসি বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে নেতা-কর্মীদের উপস্থিতিকে আচরণবিধির লঙ্ঘন বলে চিহ্নিত করে। ১৩ নভেম্বর এই বিষয়ে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য তারা ডিএমপিকে চিঠি দেয়, যার পরিপ্রেক্ষিতে বিএনপি অফিসের সামনে সন্ত্রাসী ঘটনা সংঘটিত হয়।

চিঠিতে আরও বলা হয়, সন্ত্রাসী ঘটনায় তিনটি মামলা হয়েছে। মামলায় ৪৭২ জনকে আসামি, ৭০ জনকে গ্রেফতার ও ৩৮ জনকে রিমান্ডে নেওয়া হয়েছে।

এছাড়া ৪৫ জেলার ‘মেনটর’ নিয়োগ আদেশ বাতিল; নেতাকর্মীদের ভয়ভীতি প্রদর্শন বন্ধ; প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে রিটার্নিং কর্মকর্তাদের ব্রিফিং; সব বিভাগীয় কমিশনার ও ডিআইজিকে প্রত্যাহারের দাবি করে বিএনপি।

তিনি বলেন, জেলা প্রশাসনে মেনটর নিয়োগ পূর্ব প্রচলিত। মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের এটা রুটিন কাজ। এ আদেশটি কমিশন অবহিত নয়। ৮ নভেম্বর আদেশটি করেছিল, ১৩ নভেম্বর স্থগিত করেছে।

রিটার্নিং কর্মকর্তাদের প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে ডেকে নিয়ে ব্রিফিং করার বিষয়টি কমিশন ‘অবহিত নন’ বলে জানান ইসি সচিব।

আপনার মন্তব্য লিখুন

error: Content is protected !!