সাম্প্রতিক

পোড়া ইটের ব্যবহার বন্ধ হবে ২০২০ সালে

রাজু আহমেদ, ২০২০ইং সালের মধ্যে দেশের যাবতীয় নির্মাণ কাজে পোড়া ইটের ব্যবহার বন্ধ করার লক্ষ্য নির্ধারণ করা হয়েছে বলে গৃহায়ণ ও গণপূর্তমন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন জানিয়েছেন।

গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, (৭ই জুলাই) শনিবার বিকেলে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) একাডেমিক কাউন্সিল মিলনায়তনে প্রোমোটিং সাসটেইনেবল বিল্ডিং ইন বাংলাদেশের ব্যানারে আয়োজিত এ সেমিনারে পোড়ানো ইটের বিকল্প বিষয়ে সহায়ক নীতি-নির্ধারণে করণীয় শীর্ষক আলোচনায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী এসব কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, ‘কৃষিজমি নষ্ট করে শুধু ইটভাটা নয়, শিল্পকারখানাও স্থাপন বা বাড়িঘর নির্মাণ করা যাবে না। এ জন্য সরকার নগর ও অঞ্চল পরিকল্পনা আইন প্রণয়ন করতে যাচ্ছে। এ আইন প্রণয়ন হলে জমির সুষ্ঠু ব্যবহার নিশ্চিত করা যাবে।’

গণপূর্তমন্ত্রী আরও বলেন, পরিবেশ হলো পারিপার্শ্বিকতা। পরিবেশ মানবসভ্যতা ও সমাজ ব্যবস্থার বহিঃপ্রকাশ। জন্ম থেকে মৃত্যু পর্যন্ত মানুষ পরিবেশের অনুগ্রহে লালিত -পালিত হয়। পরিবেশ মানবজীবন গঠনে মূখ্য ভূমিকা পালন করে। জীবন ও পরিবেশ ওতপ্রোতভাবে জড়িত। তাই আজ মানুষের সুস্থ ও স্বাভাবিক জীবন-যাপনের জন্য দূষণমুক্ত নির্মল পরিবেশ অত্যাবশ্যক হয়ে পড়েছে।

‘ইট তৈরি করতে গিয়ে ভূপৃষ্ঠের উপরিভাগের মাটি নষ্ট করে ফেলা যাচ্ছে। এতে কৃষিজমি নষ্ট হচ্ছে এবং উৎপাদন কমে যাবে। দেশ ভবিষ্যতে খাদ্য সংকটে পড়বে। সরকার ইমারত নির্মাণ বিধিমালা সংশোধন করেছে। সংশোধিত এ বিধিমালায় পোড়া ইটের ব্যবহার নিয়ন্ত্রণের শর্ত আরোপ করা হয়েছে। নির্মাণ কাজে পোড়া ইটের ব্যবহার ২০২০ইং সালের মধ্যে বন্ধ করার লক্ষ্য নির্ধারণ করা হয়েছে। এ লক্ষ্য অর্জন করতে হলে সকলকে সচেতন হতে হবে।’

পোড়া ইটের বিকল্প হিসেবে হাউজিং অ্যান্ড বিল্ডিং রিসার্চ ইনস্টিটিউট (এইচবিআরআই) স্যান্ড-সিমেন্ট ব্লক উদ্ভাবন করেছে। পোড়া ইটের চেয়ে এ ব্লক অধিক সাশ্রয়ী এবং টেকসই বলেও জানান মন্ত্রী।

মোশাররফ হোসেন বলেন, ‘সরকার কৃষিজমি সুরক্ষায় সচেষ্ট রয়েছে। মিরসরাইয়ে দেশের বৃহত্তম অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তোলা হয়েছে। এখানে কোনো কৃষিজমি নেয়া বা নষ্ট করা হয়নি। অথচ মিরসরাই এলাকায় অনেক বড় বড় শিল্প মালিকরা কৃষিজমি কিনে শিল্পস্থাপনের উদ্যোগ নিয়েছে। সেগুলোতে শিল্পস্থাপনে বাঁধা দেয়া হচ্ছে। কৃষি জমি সুরক্ষায় সকলকেই এগিয়ে আসতে হবে এবং স্যান্ড-সিমেন্ট ব্লকের ব্যবহারকে জনপ্রিয় করে তুলতে কাজ করতে হবে।’

ইউরোপীয় ইউনিয়ন, সুইচ এশিয়া, হাউজিং অ্যান্ড বিল্ডিং রিসার্চ ইনস্টিটিউট, বেলা, জাগরণী চক্র ফাউন্ডেশন ও অক্সফাম বাংলাদেশ এর সহযোগিতায় আয়জিত দিন ব্যাপী এ সেমিনারে আয়োজক সংস্থাগুলোর প্রতিনিধি ছাড়াও জাতীয় গৃহায়ণ কর্তৃপক্ষ, গণপূর্ত অধিদফতর, রাজউকসহ বিভিন্ন সরকারি-সেবরকারি নির্মাণ প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিরা অংশ নেন।।

জাতীয় অধ্যাপক জামিলুর রেজা চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনায় বুয়েটের উপাচার্য অধ্যাপক ড. সাইফুল ইসলাম, বুয়েটের গ্রিন আর্কিটেকচার সেলের সমন্বয়ক মোঃ আশিকুর রহমান জোয়ার্দ্দার, এইচবিআরআই পরিচালক মোহাম্মদ শামীম আখতার, অক্সফাম ইন বাংলাদেশের প্রোগ্রাম ডিরেক্টর এম বি আখতার প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানে পরিবেশ দূষণ ও পরিবেশের ভারসাম্য তথা মানবজাতির জন্য এক মারাত্মক হুমকী স্বরূপ। বাংলাদেশ সরকার পরিবেশ রক্ষার্থে এবং আগামী প্রজন্মকে পরিবেশ দূষণ থেকে রক্ষা করতে বেশ কিছু ফলপ্রসু ও যুগান্তকারী পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। এ সমস্যা নিরসনে সমাজের সকল স্তরের সর্বসাধারণকে সচেতনতার সাথে এগিয়ে আসতে হবে।