সাম্প্রতিক

‘নিজেকে একক ধরে যুদ্ধ করে যাচ্ছি’

২০১০ সালে লাক্স চ্যানেল আই সুপারস্টার প্রতিযোগিতার সেরা পাঁচে পৌঁছেছিলেন ঊর্মিলা শ্রাবন্তী কর; কিন্তু নাটকে অভিনয় শুরু ২০১৪ সালে চঞ্চল চৌধুরীর নায়িকা হয়ে। বর্তমানে বেশ ব্যস্ত সময় পার করছেন সময়ের জনপ্রিয় এই তারকা। সেই ব্যস্ততা নিয়ে কথা বলেছেন ঢাকা টাইমসের সঙ্গে। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন রুদ্র রুদ্রাক্ষ।

শোবিজে আসার পেছনের কোনো গল্প আছে?

ওরকম কোনো গল্প নেই। মা আমার ছবি পাঠিয়েছিলেন প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণের জন্য। মূলত মায়ের উৎসাহেই আমি আজকে শোবিজে।

আমাদের নাটক ইন্ডাস্ট্রির বর্তমান অবস্থা কীভাবে বর্ণনা করবেন?

নাটক ইন্ডাস্ট্রি দারুণ সময় পার করছে। প্রচুর পরিমাণে ভালো কাজ হচ্ছে প্রতিনিয়ত।

টেলিভিশন নাটক দর্শক ইউটিউবে দেখছে এটা কীভাবে দেখেন?

একজন অভিনেত্রীর জায়গা থেকে এটা পজেটিভ ভাবেই দেখি। দর্শক কাজ দেখছে। হয়তো প্রযোজক বা টেলিভিশন এতে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। তাদের জায়গায় দাঁড়ায় দেখলে আবার ভাবনাটা বিপরীত হয়ে যায়।

শোবিজে প্রতিদ্বন্দ্বী নায়িকা কারা?

আসলে কেউ কি কারও প্রতিদ্বন্দ্বী হতে পারে? মানুষ যখন নিজেকে অন্যের প্রতিদ্বন্দ্বী ভাববে তখন থেকেই পরাজয় গ্রাস করবে তাকে। আমি নিজেকে অতিক্রম করতে চাই প্রতিনিয়ত। আমাকে একক ধরে আমার সঙ্গেই দিনরাত যুদ্ধ করি।

সমসাময়িক 

তিনজন অভিনেত্রী অভিনেতার নাম বলেন, যাদের কাজে মুগ্ধ হন

নায়িকাদের মধ্যে মৌসুমী হামিদ, শবনম ফারিয়া আর তানজিন তিশা। আর নায়কদের মধ্যে রয়েছে জোভান, তাওসিফ আর সিয়াম আহমেদ।

বাংলাদেশের নাটক ইন্ডাস্ট্রিতে মেয়েরা কতটুকু সম্মানের সঙ্গে কাজ করতে পারছে?

পুরোপুরি। আমি বলব আমাদের নাটক ইন্ডাস্ট্রি সম্পূর্ণ নারীবান্ধব।

হলিউড বলিউড অতিক্রম করে সম্প্রতি আলোচিত ‘মি টু’ আন্দোলন আমাদের ঢাকাই ইন্ডাস্ট্রিতে প্রবেশ করেছে, এটা কীভাবে দেখেন?

মেয়েরা যেখানেই অপমান বোধ করবে সেখানেই প্রতিবাদ করবে এই নীতিতে বিশ্বাস করি আমি। আমিও ছোট ছোট কিছু ঘটনার সম্মুখীন হয়েছি মাঝে মাঝে, প্রতিবাদ করেছি সঙ্গে সঙ্গে। মি টু আন্দোলনটা ভেতরে ধারণ করার পক্ষপাতি আমি। যেখানে ঘটনা সেখানেই প্রতিরোধ। যদি লাইমলাইটে আসার হাতিয়ার হিসেবে এটাকে কেউ ব্যবহার করে তাহলে নারীর জন্যই খুব অপমানের হবে বিষয়টি।

নাটকের ঊর্মিলাকে কি সিনেমায় দেখতে পাবো আমরা?

হয়তো আগামী বছরেই দেখবেন। বেশ কিছু নির্মাতার সঙ্গে কথা হয়েছে। কয়েকটি গল্পও পছন্দ হয়েছে। অচিরেই সবাইকে জানিয়ে দেব।

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল প্রকাশ করা হবে না