দেশের মাটিতে বিমানের প্রথম ড্রিমলাইনার ‘আকাশবীণা’

দেশের মাটিতে বিমানের প্রথম ড্রিমলাইনার ‘আকাশবীণা’

দেশের মাটিতে বিমানের প্রথম ড্রিমলাইনার ‘আকাশবীণা’

ঢাকার মাটি স্পর্শ করেছে চতুর্থ প্রজন্মের উড়োজাহাজ বোয়িং-৭৮৭ ড্রীমলাইনার ‘আকাশবীণা’। যুক্তরাষ্ট্র থেকে বিমানের প্রথম ড্রিমলাইনারটি বিকাল ৫টায় দেশে এসে পৌঁছে।

জাতীয় পতাকাবাহী সংস্থা বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের বহরে যুক্ত হতে যাচ্ছে বিশ্বের সর্বাধুনিক প্রযুক্তির এ ড্রিমলাইনারটি। ৫৬ ফুট উচ্চতার, ওজনে হালকা, জ্বালানি সাশ্রয়ী এ বিমানটি টানা ১৬ ঘণ্টা যাত্রা করতে পারে।

বিমানটি দেশে আনতে গত বুধবার বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের পরিচালনা পর্যদের চেয়ারম্যান এয়ার মার্শাল (অব.) ইনামুল বারীর নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধি দল সিয়াটলে বোয়িং কোম্পানির এভারেট ডেলিভারী ও অপারেশন্স সেন্টারে যান।

বিমানের মুখপাত্র শাকিল মেরাজ জানিয়েছেন,বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সিইও এ এম মোসাদ্দিক আহমেদ ঊধ্বর্তন কর্মকর্তাদের নিয়ে দেশের মাটিতে ওয়াটার ক্যানন স্যালুটের মাধ্যমে বিমানটিকে স্বাগত জানান।

তিনি আরো জানান, আগামী ১ সেপ্টেম্বর ড্রীমলাইনারের প্রথম ফ্লাইট উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ওইদিন রাতে ঢাকা থেকে মালয়েশিয়ার কুয়ালালাম পুর যাবে বিমানটি। ড্রীমলাইনার দিয়ে প্রথমিক ভাবে ঢাকা-সিঙ্গাপুর ও ঢাকা-কুয়ালালামপুর রুটে ফ্লাইট পরিচালনা করা হবে।

বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স ২০০৮ সালে মার্কিন উড়োজাহাজ নির্মাতা প্রতিষ্ঠান বোয়িং কোম্পানির সঙ্গে১০টি নতুন বিমান ক্রয়ের জন্য দুই দশমিক একবিলিয়ন ইউএস ডলারের চুক্তি করে। ইতোমধ্যে চারটি নতুন বোয়িং৭৭৭-৩০০ইআর ও দুটি নতুন বোয়িং ৭৩৭-৮০০উড়োজাহাজ বিমান বহরে যুক্ত হয়েছে। বাকী চারটি উড়োজাহাজ-ই বোয়িং ৭৮৭-৮ ড্রীমলাইনার। এর প্রথমটি আজ দেশে এলো।

দ্বিতীয়টি এবছর নভেম্বর এবং সর্বশেষ দুটি ড্রীমলাইনার বিমান বহরে যুক্ত হবে আগামী বছর সেপ্টেম্বর মাসে।

বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের বহরে যুক্ত হতে যাওয়া চারটি ড্রীমলাইনারের নাম পছন্দ করেছেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখহাসিনা। এগুলো হলো— আকাশবীণা, হংসবলাকা, গাঙচিল ও রাজহংস। আজ রবিবার (১৯ আগস্ট) বিমান বহরে যুক্ত হতে যাওয়া ড্রীমলাইনারটি হলো আকাশবীণা।

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল প্রকাশ করা হবে না