সাম্প্রতিক

চালের মূল্যবৃদ্ধি ‘অযৌক্তিক ও অকারণে’: বাণিজ্যমন্ত্রী

 চালের মূল্যবৃদ্ধির বিষয়টি ‘অযৌক্তিক ও অকারণে’ বলে জানিয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি। একইসঙ্গে তিনি বলেছেন, ‘গত দুদিনে চালের দামের কোনও উঠানামা হয়নি। দাম স্থিতিশীল রয়েছে। তবে নতুন বছরে মোটা চালের তুলনায় চিকন চালের দাম কিছুটা বেশি বেড়েছে।’

সরকারের ভাবমূর্তি নষ্টসহ অস্থিতিশীল অবস্থা সৃষ্টি করতে কোনো মহল কৃত্রিমভাবে চালের মূল্য বাড়িয়েছে কিনা, তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে বলেও জানিয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী।

সোমবার (১৪ জানুয়ারি) সচিবালয়ে নিজ দফতরে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এসব কথা বলেন।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ‘পরিসংখ্যান অনুযায়ী দেশে যথেষ্ট উদ্বৃত্ত ও চালের মজুত আছে। তাই এই মুহূর্তে চাল আমদানির কথা ভাবছি না। চালের বাজারও নিয়ন্ত্রণে।’

তিনি বলেন, ‘খাদ্য মন্ত্রণালয় যেন দ্রুত কাবিখা ও টিআরসহ বিভিন্ন সহযোগিতা চালু করে। এটা করলে চালের বাজার আরও নিয়ন্ত্রণে আসবে। জনগণের ক্রয়ক্ষমতার মধ্যে আসবে।’

টিপু মুনশি বলেন, ‘এখন কৃষকের গোলায় ধান নেই। ধান আছে মিলারদের কাছে। ফলে চালের দাম বাড়ানোর কোনও যৌক্তিক কারণ দেখি না। কোনও মহল কৃত্রিমভাবে চালের মূল্য বাড়িয়ে থাকতে পারে। আমরা বিষয়টি খতিয়ে দেখবো।’

এদিকে বাজার সংশ্লিষ্টরা মনে করছেন, একাদশ জাতীয় নির্বাচন ঘিরে বাজারে সরকারের কঠোর নজরদারি থাকার কারণে এতদিন ব্যবসায়ীরা চালের দাম বাড়াতে পারেনি। নির্বাচন পরবর্তী সুযোগ বুঝে হঠাৎ দৌরাত্ম্য বেড়েছে অসাধু সিন্ডিকেটের। আর তাতে দেশে আমনের বাম্পার ফলনের পরও ভরা মৌসুমেই দেশের কোথাও কোথাও চালের মূল্য বৃদ্ধি পেয়েছে।