গাংনীতে হত্যা, ডাকাতি ও বিস্ফোরকসহ ৭ টি মামলার আসামীদুই শীর্ষ সন্ত্রাসী আটক

এলাকার শীর্ষ সন্ত্রাসী, হত্যা, বিস্ফোরক,মাদক ও দ্রুত বিচার আইনসহ ৭ টি মামলার দুই আসামীকে গ্রেফতার করেছে গাংনী থানা পুলিশ।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন, গাংনী উপজেলার মহাম্মদপুর গ্রামের হাতিপাড়া এলাকার তাহাজ উদ্দীনের ছেলে ইমরান হুসাইন ওরফে ইংরাজ (২৫) ও একই গ্রামের বাজারপাড়া এলাকার কুদ্দুছ ডাকাতের ছেলে বিদ্যুৎ হোসেন (২৬)।

এদের দুজনেরই বিরুদ্ধে ১ টি হত্যা, ২ টি ডাকাতির প্রস্তুতি, ২ টি বিস্ফোরক আইনে, ১ টি মাদক ও ১ টি দ্রুত বিচার আইনে মামলায় আদালতের পরোয়ানা রয়েছে। তারা এলাকার শীর্ষ সন্ত্রাসী হিসেবে পুলিশের তালিকাভূক্ত।

শনিবার (১৮ আগষ্ট) ভোররাতের দিকে গাংনী উপজেলার মহাম্মদপুর গ্রামে ও মেহেরপুর-চুয়াডাঙ্গা সীমান্ত এলাকা থেকে এ দুজন সন্ত্রাসীকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

গাংনী থানার ওসি হরেন্দ্রনাথ সরকার এ তথ্য নিশ্চিত করে জানান, গাংনী থানা পুলিশের এএসআই শরীফুল ইসলাম, এএসআই জহিদুল, এএসআই মামুন অর রশিদ (বকসি) এএসআই শাহাজুল ইসলাম ও এএসআই হাবিবের নেতৃত্বে পুলিশের একটি টীম মহাম্মদপুর গ্রামের রেজাউল হকের বাড়িতে অভিযান চালিয়ে সন্ত্রাসী ইংরাজকে গ্রেফতার করে।

পরে তার দেওয়া তথ্য মতে, অপর সন্ত্রাসী সন্ত্রাসী বিদ্যুতকে মেহেরপুর ও চুয়াডাঙ্গা সীমান্ত থেকে গ্রেফতার করে। তারা এলাকার শীর্ষ সন্ত্রাসী উল্লেখ করে ওসি হরেন্দনাথ সরকার জানান, আটককৃত সন্ত্রাসীদের থানায় এনে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। তারা অনেক তথ্য দিয়েছে।

আজ আদালতের মাধ্যমে মেহেরপুর জেল হাজতে প্রেরণ করা হবে।

এদিকে পুলিশের একই টীম ফেনসিডিল মামলায় আদালতের পরোয়ানাভূক্ত আসামী ছাতিয়ান চেরাগীপাড়ার সফগুল চেরাগীর ছেলে সেন্টুকে (২৮) খলিশাকুন্ডি বাজার এলাকা থেকে গ্রেফতার করেছে।

এছাড়া গাংনীর পীরতলা পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ সীমান্তবর্তি কাজীপুর গ্রামে অভিযান চালিয়ে একটি হেরোইন মামলায় আদালতের ৭ বছরের সাজাপ্রাপ্ত আসামী আব্দুর রাজ্জাক (৩৫) কে ২০ গ্রাম গাঁজাসহ গ্রেফতার করেছে। সে কাজীপুর গ্রামের মৃত ইমদাদুল হকের ছেলে।

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল প্রকাশ করা হবে না