সাম্প্রতিক

একই সাথে আলমডাঙ্গার ৪ কৃতিসন্তান বিপিএম পুরস্কার গ্রহণ করে দৃষ্টান্ত স্থাপন

চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গা থেকে একই সাথে ৪ কৃতি সন্তান প্রধানমন্ত্রির হাত থেকে বিপিএম ( বাংলাদেশ পুলিশ মেডেল) পুরস্কার গ্রহণ করে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন। আনন্দের ফল্গুধারায় ভাসছে আলমডাঙ্গা। শহরের মোড়ে মোড়ে চা’র দোকান মাতিয়ে তুলেছে এ সংক্রান্ত সংবাদ।

          জানা গেছে, গতকাল ৪ ফেব্রুয়ারি অসীম সাহসিকতা ও বীরত্বপূর্ণ কাজের স্বীকৃতি হিসেবে এ বছর পুলিশ বাহিনীর ৩৪৭ জন সদস্য ও দুই নিহত পুলিশের পরিবারকে বাংলাদেশ পুলিশ মেডেল-বিপিএম, বিপিএম-সেবা, প্রেসিডেন্ট পুলিশ পদক-পিপিএম ও পিপিএম-সেবা মেডেল প্রদান করা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ পদক প্রদান করেন। সোমবার সকালে পুলিশ সপ্তাহের প্রথম দিনে রাজধানীর রাজারবাগ পুলিশ লাইন্সের প্যারেড গ্রাউন্ডে পুরষ্কারপ্রাপ্তদের আনুষ্ঠানিকভাবে মেডেল পরানো হয়। পদকপ্রাপ্তদের মধ্যে ৪০ জন বিপিএম ও ৬২ জন পিপিএম পদক গ্রহণ করেন। এ ছাড়া গুরুত্বপূর্ণ মামলার রহস্য উদঘাটন, অপরাধ নিয়ন্ত্রণ, দক্ষতা, কর্তব্যনিষ্ঠা, সততা ও শৃঙ্খলামূলক আচরণের মাধ্যমে প্রশংসনীয় অবদানের জন্য ১০৪ জন পুলিশ সদস্যকে বিপিএম-সেবা এবং ১৪৩ জন পিপিএম-সেবা পুরস্কার দেয়া হয়েছে। এ বছর পদকপ্রাপ্তদের মধ্যে দুজন মরণোত্তর বিপিএম পদক পান। তাদের পরিবারের সদস্যদের মেডেল পরিয়ে দেন প্রধানমন্ত্রী। এর আগে সকাল সাড়ে ১০টায় রাজারবাগের প্যারেড গ্রাউন্ডে উপস্থিত হন প্রধানমন্ত্রী।

          এদিকে, গতকাল একই সাথে চুয়াডাঙ্গা জেলার আলমডাঙ্গা উপজেলার ৪ কৃতি সন্তান বিপিএম ( বাংলাদেশ পুলিশ মেডেল) পদক লাভ করেছেন। স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাদের কাজের স্বীকৃতি স্বরূপ এ মর্যাদাপূর্ণ পদক প্রদান করেছেন।

বাংলাদেশ পুলিশের শীর্ষ ২ কর্মকর্তা অতিরিক্ত পুলিশ মহাপরিদর্শক ( চিফ অব এসবি) আলমডাঙ্গা কলেজপাড়ার মৃত মীর আব্দুল আজিজের ছেলে মীর শহীদুল ইসলাম ও অতিরিক্ত পুলিশ মহাপরিদর্শক আলমডাঙ্গার গোবিন্দপুর দোয়ারপাড়ার মৃত শওকত মিয়ার ছেলে মোহাম্মদ শফিকুল ইসলাম, আলমডাঙ্গা গোবিন্দপুরের খন্দকার  সরোয়ার হোসেনের ছেলে পুলিশ সুপার আবু তৌহিদ রেন্টু ও উপজেলার মাদারহুদা গ্রামের মৃত শাহজাহান আলীর ছেলে র‍্যাব -২ এর কমান্ডিং অফিসার মেজর মোহাম্মদ আলী এ বিরল সন্মান অর্জন করেছেন।

সন্মাননা পদক লাভের পর তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় অতিরিক্ত পুলিশ মহাপরিদর্শক মীর শহীদুল ইসলাম বলেন, সারা জীবন সততা বজায় রেখে চাকুরী করেছি। আগামি দিনেও যেন সন্মান অক্ষুণ্ণ রেখে সততার সাথে অর্পিত দায়িত্ব পালন করতে পারি। দেশের সেবা করতে পারি। সেজন্য আলমডাঙ্গাসহ দেশবাসির দোয়া চেয়েছেন তিনি।      

          অন্যদিকে, একই সাথে আলমডাঙ্গার ৪ সন্তানের বিপিএম পদক অর্জনের অপূর্ব আনন্দের ফল্গুধারায় ভাসছে আলমডাঙ্গা। শহরের মোড়ে মোড়ে চা’র দোকান মাতিয়ে তুলেছে এ সংক্রান্ত সংবাদ। সকলের মুখে মুখে ফিরছে এ ৪ কৃতি সন্তানের কীর্তিগাঁথা।