সাম্প্রতিক

আলমডাঙ্গার বড়–পুমারী গ্রামে প্রাইভেটকার নিয়ে ছাগল চুরি করতে এসে যুবক পাকড়াও: গণধোলাই শেষে পুলিশে সোপর্দ

 

আলমডাঙ্গার বড়–পুমারী গ্রামে প্রাইভেটকার নিয়ে ছাগল চুরি করতে এসে যুবক পাকড়াও: গণধোলাই শেষে পুলিশে সোপর্দ

আলমডাঙ্গার বড়–পুমারী গ্রামে প্রাইভেটকার নিয়ে ছাগল চুরি করতে এসে যুবক পাকড়াও: গণধোলাই শেষে পুলিশে সোপর্দ

মুন্সিগঞ্জ প্রতিনিধি: আলমডাঙ্গার জেহালা ইউনিয়নের বড়পুটিমারী গ্রামের ঈদগাহ পাড়া থেকে প্রাইভেটকার নিয়ে ছাগল চুরি করে পালানোর সময় এক যুবককে ধরে গণধোলাই দিয়েছে এলাকাবাসী। প্রাইভেট কার নিয়ে দ্রæত সটকে পড়েছে আর এক ছাগল চোর। এ ব্যপারে ছাগল মালিক বাদী হয়ে থানায় মামলা দায়ের করেছে।
এলাকা সূত্রে জানা গেছে, গতকাল বৃহস্পতিবার বেলা ১১ টার দিকে আলমডাঙ্গার বড়পুটিমারী গ্রামের মৃত বিশারত মন্ডলের ছেলে আব্দুর রাজ্জাকের একটি ১৮/২০ হাজার টাকা মূল্যের খাসি ছাগল রাস্তার পাশে চরিয়ে বেড়াচ্ছিল। এ সময় হঠাৎ একটি প্রাইভেট কার ছাগলটির পাশে এসে থামে। কোন কিছু বোঝার আগেই দ্রæত ছাগল পাইভেট কারে তুলে নিয়ে সটকে পড়ে। ঘটনাটি মোবাইল ফোনের মাধ্যমে এলাকায় জানাজানি হলে মুন্সিগঞ্জ মোদনবাবুর মোড়ে এলাকাবাসী প্রাইভেটকার সহ দু যুবককে আটক করে। চালকের আসনে থাকা এক যুবককে হেনেহেছড়ে বের করে তাকে গণধোলাই দেয় এলাকাবাসী। অবস্থা বেগতিক দেখে পাইভেট কারের পিছনে থাকা যুবক দ্রæত প্রাইভটে কার নিয়ে সটকে পড়ে। পরিচয় দিতে গিয়ে আটক যুবক জানাই, সে কুষ্টিয়া সদর উপজেলার খয়েরপুর গ্রামের কামালের ছেলে হাফিজ (২৪)। সে ছাগল চুরির ঘটনা স্বিকার করে বলে, প্রাইভেট কার নিয়ে পালানো যুবক একই গ্রামের মান্নানের ছেলে সাগর (২৩)। সংবাদ পেয়ে মুন্সিগঞ্জ ফাড়িঁ পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছালে আটক ছাগল চোর হাফিজকে পুলিশের হাতে তুলে দেয়। এ ব্যপারে ছাগল মালিক আব্দুর রাজ্জাক দাবী হয়ে দুই ছাগল চোরের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছে।
এ ব্যপারে আলমডাঙ্গা থানার অফিসার ইনচার্জ আবু জিহাদ ফকরুল আলমগীর খান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল প্রকাশ করা হবে না