সাম্প্রতিক

শৈলকুপায় স্কুল শিক্ষিকার সাংবাদিক সম্মেলন

শৈলকুপায় স্কুল শিক্ষিকার সাংবাদিক সম্মেলন

শৈলকুপায় স্কুল শিক্ষিকার সাংবাদিক সম্মেলন

শৈলকুপা প্রতিনিধি :মিথ্যা সংবাদের প্রতিবাদে সাংবাদিক সম্মেলন করেছেন এক স্কুল শিক্ষিকা। বুধবার দুপুরে শৈলকুপা প্রেসক্লাবের অস্থায়ী কার্যালয় চৌরাস্তা মোড়ে এ জনাকীর্ণ সাংবাদিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সাংবাদিক সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন বসন্তপুর সম্মিলনী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সিনিয়র সহকারী শিক্ষিকা ঐ গ্রামের মৃত মামুদ আলী মন্ডলের মেয়ে হাসিনা খাতুন।
লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, গত ১৪ মে কুষ্টিয়া থেকে প্রকাশিত একটি দৈনিক পত্রিকায় “মামলা তুলে না নেওয়ায় হত্যার হুমকি, সুষ্ঠ বিচারের দাবীতে দারে দারে ঘুরছে মৃত ইয়ারত আলীর পরিবার” শিরোনামে একটি সংবাদ প্রকাশিত হয়। উক্ত সংবাদে আমার ও আমার পরিবারের সদস্যদের নিয়ে যে তথ্য তুলে ধরা হয়েছে তা সম্পূর্ন মিথ্যা ও উদ্দেশ্য প্রনোদিত। সংবাদে বলা হয়েছে, শালিসে জুতা পেটার অপমানে ইয়ারত আলী গলাই ফাঁস নিয়ে আত্মহত্যা করে মর্মে গত ১৪ এপ্রিল বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশ হয়। বিশেষ উদ্দেশ্য বাস্তবায়নে এক শ্রেনীর দালাল চক্র আমাদের পরিবারকে ক্ষতিগ্রস্থ করতে ভাই হত্যাকান্ডে আমার নাম জড়িয়ে দেয়। বসন্তপুর বাজারে রাতে উক্ত শালিস হয়। এসময় আমি সেখানে উপস্থিত ছিলাম না। তারপরও এ ঘটনায় আমাকে আসামী করে মামলা করা হয়। আমি হাইকোর্ট থেকে জামিনে মুক্তি পেয়ে বাড়ীতে এসে দেখি আমার ঘরে কে বা কারা তালা ঝুলিয়ে রেখেছে। আমি জানতে চাইলে মৃত ভাই ইয়ারত আলীর ছেলে ভাতিজা খোকন বলে, এই বাড়ীতে তোমাদের কোন জায়গা নেই। এ বাড়ী এখন তাদের দখলে বলে বিভিন্ন ধরনের অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ ও হুমকি-ধামকি দিয়ে বাড়ী থেকে বের করে দেয়। আমি প্রতিবাদ না করে পরবর্তীতে শ্বশুর বাড়ীতে গিয়ে উঠি।
এরপর আমাকে জড়িয়ে পত্রিকায় বিভিন্ন প্রকার ভূলভাল তথ্য উপাথ্য দিয়ে তারা একের পর এক সংবাদ পরিবেশন করিয়ে চলেছে। সেই সাথে তারা আমার জমাজমি, বাড়ীঘর ও সকল পৈত্রিক সম্মতি জবরদখলের পায়তারা চালিয়ে যাচ্ছে। এমনকি আমার চাকুরি খেয়ে ফেলার হুমকিও অব্যাহত রেখেছে। আমি এর তীব্র প্রতিবাদ জানায়।