সাম্প্রতিক

‘খালেদা জিয়া কারাগারে ৫-৭ মিনিট অজ্ঞান ছিলেন’

যারা নিজ দেশবাসীর অধিকারকে বিপন্ন করে জনগণের স্বার্থ যারা বিকিয়ে দেয় তাদের পরিণতি হয় ভয়াবহ বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

তিনি বলেন, দিল্লির আয়নায় বিশ্বকে দেখতে গিয়ে বাংলাদেশের জাতীয় স্বার্থ প্রতিবেশীর পদতলে ঠেলে দিয়ে সরকার নিজেকে নির্ভার মনে করলেও কোন লাভ হবে না।

রোববার (১০ জুন) রাজধানীর নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

‘কারাগারে বেগম খালেদা জিয়া যে পড়ে গিয়েছিলেন সেই সম্পর্কে কারা কর্তৃপক্ষ অবগত নয়’- গতকাল স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মো. আসাদুজ্জামান খান কামালের এমন বক্তব্যের সমালোচনা করে রিজভী বলেন, বেগম খালেদা জিয়ার চিকিৎসা ও অসুস্থতা নিয়ে কতটা অবহেলা করা হচ্ছে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বক্তব্যে সেটা পরিস্কার হয়ে গেল। কারা কর্তৃপক্ষ সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী কাজ করছে বলেই বন্দী খালেদা জিয়ার গুরুতর শারীরিক অসুস্থার বিষয়ে ভ্রুক্ষেপহীন থেকেছে- সেটিই প্রমাণিত হলো স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বক্তব্যের মধ্য দিয়ে।

তিনি বলেন, বেগম খালেদা জিয়া কারাগারে ৫-৭ মিনিট অজ্ঞান ছিলেন, অথচ সেটি কারা কর্তৃপক্ষ জানে না, তার মানে এটাই প্রমাণিত হয়- বেগম জিয়া কারা কর্তৃপক্ষের কতখানি অবহেলার শিকার।

বিএনপির এই মুখপাত্র বলেন, ভোটারবিহীন সরকার একটি মূলত একটি নকল সরকার। নকল কখনও আসলের সমান হতে পারে না। তাই তারা আসল কাজ, ভালো কাজ ও মানবিক কাজ করতে পারে না। অসুস্থ ও সাজানো মামলায় বন্দী খালেদা জিয়াকে নিয়ে তাদের অনড়তা, একগুঁয়েমি ও বৈরিতা আরও বেশি মাত্রায় স্পষ্ট হয়ে ওঠেছে।

এ সময় তিনি সরকারকে হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন, অবিলম্বে তাঁর (খালেদা) মুক্তি ও সুচিকিৎসার ব্যবস্থা গ্রহণ করা না হলে রাজপথ হবে অগণিত মানুষের শ্লোগানে শ্লোগানে মুখরিত। তীব্র আন্দোলনের শপথ নিয়ে জাতীয়তাবাদী শক্তি অল্প সময়ের মধ্যেই রাজপথে ঝাঁপিয়ে পড়বে। আমরা সরকারের উদ্দেশ্যে দ্ব্যর্থহীন ভাষায় জানিয়ে দিতে চাই বেগম খালেদা জিয়ার কারামুক্তি ও চিকিৎসা নিয়ে যে নির্মমতা প্রদর্শণ করা হচ্ছে তাতে ক্ষমতাসীনদের জন্য রাজনীতির ময়দান শান্ত, নিরাপদ ও সুখময় হয়ে উঠবে না।

error: Content is protected !!