সাম্প্রতিক

আলমডাঙ্গা বড়পুটিমারী গ্রামে ছদ্মবেশি ছিনতা্ইকারী নারীকে নিয়ে তোলপাড় সৃষ্টি

আলমডাঙ্গা বড়পুটিমারী গ্রামে ছদ্মবেশি ছিনতা্ইকারী নারীকে নিয়ে তোলপাড় সৃষ্টি

আলমডাঙ্গা বড়পুটিমারী গ্রামে ছদ্মবেশি ছিনতা্ইকারী নারীকে নিয়ে তোলপাড় সৃষ্টি

আলমডাঙ্গা বড়পুটিমারী গ্রামে ছদ্মবেশি ছিনতা্ইকারী নারীকে নিয়ে তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে। পুরুষের পোশাক পরে প্রতিবেশির বাড়িতে ছিনতাই করতে গেলে এলাকাবাসীর হাতে আটক হয়। তবে ছদ্মবেশি বুলবুলি আত্মগোপন করলেও শেষরক্ষা হয়নি তার। রাতেই আলমডাঙ্গা থানা পুলিশের অভিযানে সে ধরা পড়ে। ১১ আগস্ট রাত সাড়ে ৮টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। ছদ্মবেশি বুলবুলি গ্রামের শুকুর আলীর স্ত্রী। গ্রামবাসি ও পুলিশ সুত্রে জানা গেছে, পুটিমারী গ্রামের পশ্চিমপাড়ার মালাশিয়া প্রবাসী হাবিবুর রহমানের স্ত্রী শারমিন সুলতানা লাবনী রাত ৮টার দিকে খাওয়া দাওয়া করছিল। এসময় ধারালো অস্ত্র গাতে একজন তাকেসহ পরিবারের সবাইকে জিম্মির চেষ্টা করে। তাদের আর্তচিৎকারে এলাক লোকজন ছুটে এলে অস্ত্রধারী পালিয়ে যায়। গ্রামবাসী অস্ত্রধারীকে খুঁজতে খুঁজতে মাঠে গিয়ে ধানক্ষেত থেকে প্যান্ট-শার্ট পড়া মুখে কালি লাগানো অবস্থায় একজনকে আটক করে। তার মুখ ধোয়ার পর গ্রামবাসী মধ্যবয়সী ছদ্মবেশি নারী বুলবুলিকে শনাক্ত করে। গ্রামবাসী জানায়, হবিরারের স্ত্রী শারমিন সুলতানা লাবনী একটি সমিতি থেকে ১০ হাজার টাকা ঋণ নিতে চেয়েছিল। ওই টাকা ছিনতাইয়েরর জন্য পুরুষ সেজে বুলবুলি বাড়িতে হানা দেয়। বুলবুলিকে চেনারপর তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়। পরে আলমডাঙ্গা থানার অফিসার ইনচার্জ আবু জিহাদ ফকরুল আলম খান সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে প্রায় দেড়ঘন্টা অভিযান চালিয়ে ছদ্মবেশি ছিনতাইকারী বুলবুলিকে আটক করে নিয়ে আসে। পরে তাকে জিজ্ঞাসা বাদে গুরুত্বপূর্ন তথ্য দিয়েছে বলে অফিসার ইনচার্জ জানান।

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল প্রকাশ করা হবে না

error: Content is protected !!